বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

মঠবাড়িয়ায় প্রতিপক্ষকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ

মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি :: পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলায় সড়ক দুর্ঘটনাকে হামলা বলে থানায় মামলা করে প্রতিপক্ষকে হয়রানি করার অভিযোগ উঠেছে। এই মিথ্যা মামলার আসামী হয়েছেন ১। সচীন সিকদার (৪০) ২। রিপন সিকদার (২৯) উভয় পিতা- সৈলেন্দ্র নাথ সিকদার, উভয় সাং- নলী, ৩। ডাঃ সৌরভ হালদার (৩৭), পিতা- ধীরেন হালদার ৪। জাবেদ খাঁ পিতা- সিদ্দিক খাঁ, ৫। মোঃ আবু হানিফ খাঁ, পিতা- ইদ্রিস খাঁ, সর্ব সাং-বুখাইতলা বান্ধবপাড়া, ৬। সঞ্জীব সিকদার (৪২) পিতা- সৈলেন্দ্র নাথ সিকদার ৭। সৈলেন্দ্র নাথ সিকদার (৬০), পিতা- সুরেন্দ্র নাথ সিকদার, উভয় সাং-নলী, উপজেলা-মঠবাড়িয়া, জেলা-পিরোজপুর।

ঘটনাটি সড়ক দুর্ঘাটনা না হামলা এমন প্রশ্ন রেখে অনুসন্ধান শুরু হলে প্রথমে মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের রোগী ভর্তি রেজিঃ খাতা দেখা হয়। খাতায় উল্লেখ রয়েছে সেবিকা-৩০ বছর, স্বামী নিতাই রায় গ্রাম- নলী গোলবুনিয়া, পোষ্টঃ নলী, উপজেলা মঠবাড়িয়া, জেলা পিরোজপুর। রোগীর বিবরনে লেখা রয়েছে আরটিএ (রোড ট্রাফিক এক্সিডেন্ট)। কিন্তু এই লেখাটি একটানে কেটে সামনে লেখা আছে পিএ (ফিজিক্যাল এসাল্ট)। অনুসন্ধানে যাওয়া হয় পশ্চিম সেনের টিকিকাটা মাতৃসদন ক্লিনিকের সামনে মঠবাড়িয়া টু সাপলেজা রাস্তায় । ক্লিনিকে খোঁজ নিয়ে ঘটনাস্থল সংলগ্ন একটি বসত বাড়ী এবং ঘটনা স্থলের দুই পাশে থাকা একাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে খোঁজ নিয়ে ঘটনার সময় ও তারিখে কোন হামলা বা মারামারি সংগঠিত হওয়ার কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।

২নং আসামী রিপন সিকদার বিসিএস পরীক্ষার্থী বরিশালে অবস্থান করছেন। ৩নং আসামী ডাঃ সৌরভ হালদার মঠবাড়িয়া উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত। ৬নং আসামী সঞ্জীব সিকদার। তার পুত্র বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে কর্মরত। ৭নং আসামী সৈলেন্দ্র নাথ সিকদার বয়সের ভারে অনেকটা ন্যুব্জ। ৪ ও ৫ নং আসামী অন্য এলাকার স্থানীয় প্রতিহিংসার শিকার।

এই ঘটনায় সেবিকা রানী বলেন, মোটরসাইকেলে মঠবাড়িয়া যাওয়ার সময়ে ঘটনাস্থলে প্রতিপক্ষরা আমাকে কুপিয়ে রাস্তায় ফেলে রাখে। ১জন অটো ড্রাইভার আমাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালে নিয়ে ডাক্তারদের সে কি বলেছে তা আমার জানা নেই।

ড্রাইভার অচেতন অবস্থায় রাস্তায় পড়ে থাকা একজন মানুষকে থানা পুলিশকে ইনফর্ম না করে কিভাবে হাসপাতালে নিয়ে গেল? এমন প্রশ্নের জবাবে সেবিকা বলেন-আমার মাথা ঘুরায়। এখন কিছু বলতে পারবো না। হাসপাতালের খাতায় রোড এক্সিডেন্ট লেখা হয়েছিলো কেন? এমন প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, আমি অচেতন ছিলাম। ওই সময়ের কিছু মনে নেই।

এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রথমে আমাদের রোড এক্সিডেন্ট বলে অবগত করা হয়েছে। পরে হামলার শিকার হওয়ার কথা জানালে আরটিএ কেটে পিএ লেখা হয়। জরুরী বিভাকে সিসি ক্যামেরায় বিষয়টি সংরক্ষিত আছে।

নিতাই গং ও সৈলেন্দ্র নাথ সিকদার গংদের বিরোধীয় জমির কাগজ পত্র পর্যালোচনায় দেখা যায়, বি,এস পর্চা ডিপি নং ১৮৫৩ জেলা পিরোজপুর উপজেলা মঠবাড়িয়া মৌজা নলী জে,এল নং ৮৪ । সৈলেন্দ্র নাথ সিকদার পিতা মৃত সুরেন্দ্র নাথ সিকদারের নামে ২৯ শতাংশ জমি রেকর্ড হয়। রেকর্ডীয় জমিতে বসত ঘর সংস্কার করতে গিয়ে নিতাই গংদের বাধার সম্মুখীন হন সৈলেন্দ্রনাথ সিকদার গং।

একাধিক বায়না দলিল ও কবলা দলিল পর্যালোচনায় দেখা যায়, দলিল নং ৩৬৭৪ তারিখ ২৭/৩/৮৪ এস, এ খতিয়ান নং ৭০৫ দাগ নং ৯৭ জমির পরিমান ১৩ শতাংশ। দলিল নং ৭৯১৩ এস, এ খতিয়ান নং ৬৯৯ দাগ নং ১৪৩ জমির পরিমান সোয়া আট শতাংশ এস, এ খতিয়ান নং ৭০৫ দাগ নং ৯৭ জমির পরিমান পৌনে ৭ শতাংশ। গ্রহীতা সৈলেন্দ্র নাথ সিকদার পিতা মৃত সুরেন্দ্রনাথ সিকদার। বায়না চুক্তি স্ট্যাম্প নং ৫১৪ তারিখ ০৩/০৫/২০০৭ ইংরেজি, বাংলা ২০/০১/২০১৪। স্ট্যাম্প ক্রেতা নিরঞ্জন রায়। বায়না দলিল গ্রহীতা সৈলেন্দ্র নাথ সিকদার দাতা নিরঞ্জন রায় এস, এ খতিয়ান নং ৭০৫ দাগ নং ৭৮ জমির পরিমান সাড়ে ৭ কাঠা।

দলিল নং ৭৩১৮/১২ তারিখ ২৭/১২/১২ ইংরেজি এস, এ খতিয়ান নং ৭০৫ নামজারি ও জমাখারিজ মোকর্দ্দমায় সংশোধিত খতিয়ান নং ১০৮০ দাগ নং ৭৮ ও ৯৭ জমির পরিমান ৩৫ শতাংশ । গ্রহীতা সৈলেন্দ্রনাথ সিকদার দাতা ভবতোষ হালদার এতদস্বত্তে সৈলেন্দ্রনাথ সিকদার উল্লেখিত দলিলের সমুদ্বয় সম্পত্তি মিউটেশন করে খাজনা প্রদান করে আসছেন। কাগজ পত্র সঠিক থাকায় প্রতিপক্ষরা আইন আদালতে বার বার ব্যর্থ হয়ে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির চেষ্টা করছেন বলে জানান ভুক্তভোগীরা।

এ ব্যাপারে মঠবাড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুদুজ্জামান জানান, ভুল তথ্য দিয়ে বা মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে প্রতিপক্ষকে হয়রানি করার কোন সুযোগ নেই। আবার অপরাধ করেও পার পাওয়ার কোন সুযোগ নেই। বিষয়টি অধিকতর তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :