বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

মহান স্বাধীনতার বিজয় গৌরবের, প্রিয়জন হারানো শোকের

আহমেদ জালাল : বাঙালি যুগে যুগে স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন হৃদয়ে লালন করেছে। স্বাধীনতাকামী বাঙালির হৃদয়ে বিজয়ের বৈজয়ন্তী উড়িয়ে এসেছিল সেই সোনাঝরা গৌরবের দিনগুলো। একাত্তরের এই মাসেই অর্জিত হয় মহান স্বাধীনতা। বিশ্বের মানচিত্রে স্বাধীন-সার্বভৌম দেশ হিসেবে স্থান করে নেয় বাংলাদেশ। পাকিস্তানকে পর্যুদস্ত করে অর্জিত এ বিজয় ছিল আনন্দ,উল্লাস ও গৌরবের। একই সঙ্গে ছিল প্রিয়জন হারানো শোকের। অবাক! স্বাধীনতার দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠির আস্ফালনে ধর্মীয় উন্মাদনা ছড়িয়ে সাধারন মানুষকে বিভ্রন্তা করে চলছে। কেন সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠির বিরুদ্ধে গর্জে উঠছে না এই বাংলায়? তবে কি মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন আজ আবারও প্রশ্নের মুখে? বাঙালি সংস্কৃতিকে কেন আজকে ধর্মের বিপরীতে দাঁড় করানো হলো? সংস্কৃতি আর ধর্ম কেউ কারও বিরোধী ছিল না কখনও, অথচ একটি অপরাজনৈতিক শক্তি সবসময় চেষ্টা চালিয়ে আসছিল এ দেশের সংস্কৃতিকে ধ্বংস করার। কারণ, তারা জানতো এই জাতির একটাই ভিত্তি আর সেটা হচ্ছে সংস্কৃতির শিক্ষা। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে পৌঁছে দিতে হবে এই দেশের প্রতিটি কোনায়। মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে দেশকে গড়ে তুলতে না পারলে স্বপ্নের সোনার বাংলা আসবে না কোনোভাবেই। সেই চেষ্টার কতটা সফল হয়েছে?

কী ছিল মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। রাষ্ট্রীয় চার নীতি? ২৫ মার্চের আগে বঙ্গবন্ধুর নানান বক্তৃতা-বিবৃতিতে যে কয়টি কথা বেরিয়ে এসেছিল, তা হলো গণতন্ত্র চাই, সমাজতন্ত্র চাই,ধর্মকে ব্যবহার করে রাজনীতি করা যাবে না। ১৯৭০ সালে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে এবং অক্টোবরে নির্বাচনের আগে জাতির উদ্দেশে দেওয়া বঙ্গবন্ধুর বেতার-টিভি ভাষণেও এই শব্দগুলো ছিল। বাহাত্তরে এসে শব্দগুলো অনেকটা পরিমার্জিত হয়ে পরে সংবিধানে রাষ্ট্রীয় মূলনীতি হিসেবে গ্রন্থিত হয় গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা ও জাতীয়তাবাদ। কিন্তু সংবিধান থেকে ধর্মরিপেক্ষতা ও সমাজতন্ত্র সরিয়ে দেয়া হয়েছে। ওই দুটি দাবি এসেছিল মুক্তির জাগ্রত আকাঙ্খা থেকেই। পাকিস্তান আমলে তৈরি সাম্প্রদায়িক ও শ্রেণিগত বিভাজনকে নাকচ করে দিতে চেয়েছিল মহান মুক্তিযুদ্ধ। মূলনীতি দু’টি যে বিদায় করে দেয়া হলো সেটা কোনো দুর্ঘটনা নয়, স্বাভাবিক ঘটনা বটে। মুক্তিযুদ্ধ ছিল জনযুদ্ধ,আমাদের ইতিহাসের একমাত্র জনযুদ্ধ। জনযুদ্ধ জনতার জয় হয়েছিল। বাস্তবতা বদলে গেছে। জনগণ যে স্বপ্ন দেখেছিল তা এখন অতীতের ব্যাপার হয়ে দাঁড়াচ্ছে। হয়তো-বা অতীতের স্মৃতিতেই পরিণত হবে, কারো কারো হয়তো মনে এমন আশা রয়েছে। বাঙালির গৌরবোজ্জ্বল মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ের মাস ডিসেম্বর। বাংলা ও বাঙালির মহান অর্জনের ও বিশ্বের বুকে আত্মপরিচয় প্রতিষ্ঠার মাস ডিসেম্বর।

ইতিহাসের জঘন্যতম গণহত্যা, পাক হানাদার বাহিনীর বর্বরত হত্যাযজ্ঞ, নির্যাতন, নিপীড়নের বিরুদ্ধে লড়ে ৯ মাসের ত্যাগ তিতিক্ষার পর পৃথিবীর বুকে এ মাসেই রচিত হয় এক অমর গাথা- বাঙালির স্বাধীনতা, লাল সবুজের পতাকা, স্বাধীন বাংলাদেশ। বছর ঘুরে আজ আবার এসেছে সেই ডিসেম্বর। ১ ডিসেম্বর। শুরু হলো বিজয়ের মাস। এক সাগর রক্তের বিনিময়ে বীর বাঙালি বিজয় ছিনিয়ে এনেছিল একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বরে। তবে এ মাসের প্রতিটি দিনই ছিল ঘটনাবহুল। একাত্তরের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণে উদ্দীপ্ত বাঙালি জাতি দৃঢ় শপথ নিয়েছিল স্বাধীনতা অর্জনের। ২৫ মার্চের নির্মম নৃশংস হত্যাকাণ্ডের পর তাঁরা রুখে দাঁড়িয়েছিল শোষণের বিরুদ্ধে। ইতিহাসের মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে তাঁরই হাত ধরে পূরণ হয়েছিল সেই আজন্ম লালিত স্বপ্ন। সেদিনের রেসকোর্স ময়দানে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সমস্ত জাতিকে স্বাধীনতার প্রস্তুতির নির্দেশ দিয়েছিলেন।

বঙ্গবন্ধু সেদিন বলেছিলেন, ‘এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতা সংগ্রাম’। এরপর ২৫ মার্চের কালরাতের নৃশংসতার জবাবে জাতির জনকের সেই সংগ্রামের আহ্বানে দেশকে স্বাধীন ও মুক্ত করার যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে বিভিন্ন বয়সী শ্রেণিপেশার নারী-পুরুষ। শুরু হয় পাকিস্তানের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরোধ যুদ্ধ। ডিসেম্বরে বিজয়ের শেষ সময়ে এসে পিছু হটতে থাকে হানাদার বাহিনী। পরাজয় নিশ্চিত জেনে একপর্যায়ে পাকিস্তানি বাহিনী দেশকে মেধাশূন্য করতে তাদের এদেশীয় দোসর রাজাকার-আলবদর-আল শামসদের সহযোগিতায় এ দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তান বুদ্ধিজীবীদের হত্যায় মেতে ওঠে। তাই বুদ্ধিজীবীদের প্রতি সম্মান দেখিয়ে প্রতিবছরের ১৪ ডিসেম্বর বুদ্ধিজীবী হত্যা দিবস হিসেবে পালন করা হয়। মুক্তিযুদ্ধের শেষ সময়ে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করেও শেষ রক্ষা হয়নি হানাদারদের। শেষ পর্যন্ত ১৬ ডিসেম্বরেই পর্যুদস্ত হতে হয় তাদের। যুদ্ধ শেষে ৩০ লাখ শহিদের রক্ত ও ২ লাখ নারীর সম্ভ্রমের বিনিময়ে ১৬ ডিসেম্বর আসে মুক্তির স্বাদ। এদিন ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর আনুষ্ঠানিক আত্মসমর্পণের মাধ্যমে সূচিত হয় বাঙালির বিজয়।

বলাবাহুল্য : ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে (তৎকালীন রেসকোর্স ময়দান) বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা শেখ মুজিবুর রহমান জাতিকে স্বাধীনতার জন্য প্রস্তুত হওয়ার ডাক দিয়েছিলেন যে ভাষণে, সেটি ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের দলিল হিসেবে স্বীকৃতি অর্জন করেছে।

১৯৭১ সালের ডিসেম্বরের শুরু থেকেই বাঙালি বীর সন্তানদের সঙ্গে যুদ্ধে একের পর এক পরাজিত হতে থাকে পাকিস্তান সামরিক বাহিনী। ক্রমাগত পরাজয়ে তারা দিশেহারা হয়ে পড়ে। ১৯৭১ সালের ১ ডিসেম্বর নিউইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের অভ্যন্তরে গেরিলা হামলা অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীর পদস্থ কর্মকর্তাদের নির্দেশে সেনাবাহিনী আরও ভয়াবহভাবে নিরীহ জনগণের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছে। বুড়িগঙ্গা নদীর অপর পারে জিঞ্জিরাতে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে এক দিনেই হত্যা করা হয় ৮৭ জনকে। এ সময় বাঙালির স্বাধীনতার লড়াইকে আড়ালে রাখতে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান পাক-ভারত যুদ্ধ শুরু হয়েছে বলে বেতারে ঘোষণা দেন। তবে সেদিন কোনো ষড়যন্ত্রই বাঙালিকে বিজয় অর্জন থেকে পিছিয়ে রাখতে পারেনি। মাতৃভূমিকে হানাদারমুক্ত করতে তারা মরণপণ লড়াই চালিয়ে যান। একদিকে পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রাণপণ যুদ্ধ, অন্যদিকে মিত্রবাহিনীর সাঁড়াশি আক্রমণে জীবন বাঁচাতে পাকিস্তানি হানাদাররা বীর বাঙালির কাছে আত্মসমর্পণের পথ খুঁজতে থাকে। একপর্যায়ে বাংলাদেশ দ্রুত মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত বিজয়ের দিকে এগিয়ে যায়। রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের পথ বেয়ে আসে পরম কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা। ১৯৭১ সালের আজকের দিনে মুক্তিবাহিনী সিলেটের শমশেরনগরে আক্রমণ চালিয়ে টেংরাটিলা ও দোয়ারাবাজার শত্রুমুক্ত করে।

মুক্তিবাহিনীর অপারেশনের মুখে পাকিস্তানিরা সিলেটের গ্যরা, আলীরগাঁও থেকেও ব্যারাক গুটিয়ে নেয়। এ সময় রাওয়ালপিন্ডিতে পাকিস্তানের এক মুখপাত্র ‘শেখ মুজিবুর রহমানের বিচার শেষ হয়নি’ বলে বিবৃতি দেন। একই দিনে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী তার পার্লামেন্ট বক্তৃতায় উপমহাদেশে শান্তি প্রতিষ্ঠার স্বার্থে বাংলাদেশ থেকে পাকিস্তানি সৈন্য সরানোর জন্য ইয়াহিয়া খানের প্রতি আহ্বান জানান। জামায়াতে ইসলামীর শীর্ষ নেতা গোলাম আযম এ সময় ইয়াহিয়া খানের সঙ্গে বৈঠক করে ‘পূর্ব পাকিস্তান’ থেকে প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিয়োগের দাবি তোলেন। স্বাধীন বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধী হিসেবে দিত এই নেতা তখন মুক্তিযুদ্ধকে ‘কমিউনিস্টদের অপতৎপরতা’ হিসেবে অভিহিত করে সবাইকে সতর্ক থাকতে বলেন। বিজয়ের মাস শুরুর প্রাক্কালে বাঙালির মনে অন্যতম বড় স্বস্তির কারণ এই যে, দীর্ঘকাল পর হলেও জাতির শাপ মোচন হয়েছে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কার্যক্রম সব প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে সুষ্ঠুভাবে এগিয়ে চলছে,অনেকের বিচারের রায় হয়েছে। এবং কয়েকজনের রায় কার্যকরও হয়েছে। তবে যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত পাকিস্তানের ১৯৫ সামরিক কর্মকর্তার বিচারের দাবি ও তাদের কাছে পাওনা আদায়ের দাবিও এখন জোরেশোরে উঠেছে। প্রতি বছরের মতো এবারও বিজয়ের মাসে দেশবাসী বিজয় ও মুক্তির আনন্দে উল্লসিত হবে। ভালোবাসায় উজ্জীবিত ও শোকে মুহ্যমান হয়ে শ্রদ্ধা জানাবে অগণিত মুক্তিযোদ্ধাকে। নানা আয়োজনে সবার চেতনায় অনুরণিত হবে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ও শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাবনত ভালোবাসা। ঘৃণা-ধিক্কার জানাবে স্বাধীনতার শত্রু এদেশীয় রাজাকার, আলবদর ও মানবতার শত্রু যুদ্ধাপরাধীদের।

প্রসঙ্গত : সম্প্রতি কয়েকটি ধর্মীয় উগ্রবাদী গোষ্ঠী বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যকে কেন্দ্র করে দেশে ধর্মীয় উন্মাদনায় সাম্প্রদায়িকতা আস্ফালন ছড়াচ্ছে। এ দেশের সাধারণ মানুষ এখনও কিছু স্বপ্ন নিয়ে বেঁচে আছে,একদিন একটি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ দেখবো বলে,যে বাংলাদেশে কোনও ধর্মীয় বিভেদ থাকবে না, ধর্মের নামে হানাহানি থাকবে না। এখানে সবার হৃদয়ে থাকবে কেবল একটি নাম আর সে নামটি হবে সোনার বাংলাদেশ।

লেখক : নির্বাহী ও সম্পাদক,৭১’র মুখপত্র ‘দৈনিক বিপ্লবী বাংলাদেশ’।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :