বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

মাধবপাশায় মূর্তিমান আতঙ্কের আরেক নাম ভূমিদস্যু কাঞ্চন!

Print Friendly, PDF & Email

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার মাধবপাশা উনিয়নের ‘ভয়ঙ্কর এক ভূমিদস্যু’র নাম মো. কাঞ্চন সরদার। তিনি ওই এলাকার মৃত মহব্বত আলী সরদারের ছেলে। জাল দলিল সম্পাদন থেকে শুরু করে লোকজনকে ধরে এনে জমি লিখে নেওয়া তার নিত্যদিনের কাজ। স্থানীয় বহু পরিবারকে ভিটেহারা করেছেন তিনি। প্রতারণার মাধ্যমে লুটে নিয়েছেন বহু অসহায় মানুষের জমি। কাঞ্চন সরদার নিজের প্রতারণা আড়াল করতে নানা ছলছাতুরির আশ্রয় নেন। ভূয়া পরিচয় পত্র তৈরী প্রশসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে দখল নিয়েছে অনেকে জমি। এলাকায় গড়ে তুলে এক সন্ত্রাস বাহিনী। এ অবস্থায় তার বিরুদ্ধে কথা বলাতো দুরের কথা সাধারণ মানুষ এক অজানা শঙ্কায় পার করছেন দিনরাত। এমনটাই অভিযোগ করেছেন অনেক ভুক্তভোগী পরিবার।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, কাঞ্চন সরদার পূর্বে ডাকাত দলের সদস্য ছিলেন। তার ভয়ে কেউ মূখ খুল্লেই তার অবস্থা খারাপ করে দেয়। তিনি ডাকাতি মামলায় সাজাও খেটেছেন। তার বিরুদ্ধে খুনেরও অভিযোগ রয়েছে। নাম স্বাক্ষর না জানলেও কাঞ্চন সরদার জমি আত্মসাতের মাধ্যমে টাকা আয়ের রাস্তা খুঁজে বের করেন। এ সময় গড়ে তোলেন মাস্তান বাহিনী। অসহায় গরিব মানুষকে হুমকি-ধমকি দিয়ে কাঞ্চন সরদার নিজের নামে জমি লিখে নিতো।

অভিযোগ রয়েছে, মৃত মতিউর রহমানের ছেলে আবদুল হালিম নামে এক পুলিশ সদস্যের জেএল ৪৩নং রবিন্দ্রনগর মৌজার এসএ খতিয়ান ১৪৮, আর এস খতিয়ান ৩০৫ এবং ১৩৪, ১৩৫, ১৩৬ ও ২২৩, ২২৪ দাগের মোট ১৩৬ শতাংশ জমি ভূয়া ডিগ্রি করে নিলামের নামে দখল করেছে। যার কোন সঠিক কাগজ প্রত্র তার কাছে নেই। ভূয়া পরিচয় পত্রের মাধ্যমে নিলামের নামে নিজের করে নেয়। তার পরিচয় পত্রে জন্ম সাল ১৯৬৫ দেয়া কিন্তু তিনি জালিয়াতি কলে নিলামের জন্য ১৯৩৫ সালে জন্ম তারিখ দেখিয়ে ভূয়া পরিচয় পত্র দাখিল করে ভূয়া নিলামের কাগজ প্রদর্শন করেন। এতে একই এলাকার মৃত সবেদ আলী খানের ছেলে রুস্তম আলী খান নামে এক গরিব লোকের জেএল ৪৩নং রবিন্দ্রনগর মৌজার এসএ খতিয়ান ১৪৮ এবং ২১৭, ২১৮ ও ২১৯ দাগের মোট ৭৫ শতাংশ জমি দখল করেছেন। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে একাধিক জমি দখলের অভিযোগ রয়েছে।

এই ভয়ঙ্কর ভূমিদস্যু কাঞ্চন সরদারের হাত থেকে বাঁচতে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভূক্তভোগী একাধিক পরিবার।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *