বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

মুক্তিযোদ্ধার জানাজায় দাঁড়ালেন মন্ত্রী, চেয়ারে বসে থাকলেন ইউএনও

বার্ধক্যজনিত নানা রোগে মারা গেছেন নরসিংদীর মনোহরদী উপজেলার খিদিরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম। মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

মৃত সিরাজুল ইসলাম মনোহরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নরসিংদী আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ফজলুল হকের বড় ভাই।

মহামারি করোনার সংক্রমণ উপেক্ষা করে মঙ্গলবার বিকেলে মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলামের জানাজায় উপস্থিত হন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন।

জানাজায় যখন দলীয় নেতাকর্মীরা মৃত মুক্তিযোদ্ধাকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করছিলেন তখন দাঁড়িয়ে ছিলেন শিল্পমন্ত্রী। পাশাপাশি উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইকবাল হাসানসহ পুলিশ ও নেতাকর্মীরাও দাঁড়িয়ে ছিলেন।

এ সময় পাশের চেয়ারে বসে ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাফিয়া আক্তার শিমু। এমন একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। তা নিয়ে স্থানীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে দেখা দেয় অসন্তোষ। জেলাব্যাপী শুরু হয় আলোচনা-সমালোচনা। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় নেতাকর্মীরা।

নাম প্রকাশ না করে উপজেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ এক নেতা বলেন, ইউএনও শাফিয়া আক্তার শিমু নিজেই পরিচয় দেন তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। পাশাপাশি মুক্তিযোদ্ধা কোটায় তার চাকরি হয়। সেখানে একজন মুক্তিযোদ্ধার জানাজায় রাষ্ট্রীয় সম্মান জানাতে গিয়ে একজন মন্ত্রী যখন দাঁড়িয়ে, ঠিক তখন ইউএনও চেয়ারে বসে থাকেন কিভাবে তা আমাদের বোধগম্য নয়। এটা চরম বেয়াদবি।

স্থানীয় সূত্র জানায়, এর আগেও খিদিরপুর ইউনিয়নের একজন মুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ছাড়াই দাফন করা হয়েছিল। তবে মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলামকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাফিয়া আক্তার শিমু বলেন, একজন মানুষ হিসেবে আমার সব সময় চেষ্টা থাকে সবাইকে সম্মান ও সহযোগিতা করার। দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে একজন যখন দীর্ঘ বক্তব্য দিচ্ছিলেন তখন মন্ত্রী মহোদয় চেয়ার থেকে উঠে বলেন বক্তব্য ছোট করতে। সময়টা ২-৩ সেকেন্ডের। এরই মধ্যে কেউ উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে একটা ছবি তুলে ফেসবুকে ভাইরাল করেছে। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক।

প্রত্যক্ষদর্শী নেতাকর্মীরা জানান, মনোহরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নরসিংদী আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ফজলুল হকের বড় ভাই সিরাজুল হক। বার্ধক্যজনিত কারণে মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। খবর শুনে দলীয় নেতাকে সম্মান জানাতে ছুটে আসেন শিল্পমন্ত্রী।

জানাজায় মরহুমের স্বজন ও দলীয় নেতাকর্মীরা যখন শোকমঞ্চে স্মৃতিচারণ করছিলেন তখন শিল্পমন্ত্রী চেয়ার থেকে উঠে দাঁড়িয়ে যান। কিন্তু তখন ইউএনও শাফিয়া আক্তার শিমু চেয়ারে বসেছিলেন। বিষয়টি সবার নজরে পড়েছে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :