বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

মেহেন্দিগঞ্জে দেশরত্ন শেখ হাসিনা মহাবিদ্যালয়ে অবৈধ নিয়োগ বাণিজ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বরিশাল জেলার মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার আলিমাবাদ ইউনিয়নের দেশরত্ন শেখ হাসিনা মহাবিদ্যালয়ে অবৈধ ভাবে নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তথ্য গোপন, পত্রিকার সার্কুলার জাল করে বিষয় বাড়ানো, নিজের স্বজনদের চাকরি দেয়া, বিপুল পরিমাণ টাকা নিয়ে জামাত-শিবিরের সদস্যদের চাকরি দেয়াসহ নানান বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে সর্বসেরা অধ্যক্ষের দাবিদার আনোয়ার হোসেন বাবুল।

আনোয়ার হোসেন বাবুলকে বরিশাল নগরীর সদর রোডে আজিজ কার্পেটের স্বত্বাধিকারী হিসেবে সবাই চেনেন এক নামে, জীবনের দির্ঘকাল ব্যবসা বাণিজ্য করা আনোয়ার হোসেন বাবুল হঠাৎ করেই গত কয়েক বছর যাবত ধরে মেহেন্দিগঞ্জের দেশরত্ন শেখ হাসিনা কলেজের অধ্যক্ষ পদে আসিন আছেন, এনিয়ে এলাকার মানুষের মধ্যেও রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

সরজমিন ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালে শুরু হওয়া কলেজটিতে ২০ মে ২০১৫ সালে সমকাল পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি মোতাবেক পরিক্ষায় অংশ গ্রহণ করেন, যারা পরিক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে দীর্ঘদিন শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে আসছে তাদের এখন আনোয়ার হোসেনের বাণিজ্যের কারনে মানবেতর জীবনযাপন কাটছে।

এদিকে সুচতুর অধ্যক্ষ আনোয়ার ২০১৫ সালের সমকাল পত্রিকায় যে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছিলো, সেই তারিখের পত্রিকার মূল
কপি জমা না দিয়ে, শুধু পত্রিকার লোগো ফটোকপি করে বিষয় বাড়াতেও করেছেন প্রতারণা। যা ২০১৫ সালের মে মাসের ২০ তারিখের সমকাল পত্রিকাটি ও অধ্যক্ষের সিল যুক্ত নতুন স্ক্যান করা সার্কুলারটি দেখলেই তার প্রতারণার বিষয়টি পরিস্কার হবে।

যারা দীর্ঘদিন কলেজটিতে কর্মরত ছিলেন, চলতি বছর কলেজটি সরকারি করন করা হলে অর্থ বাণিজ্যে মেতে ওঠেন অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসেন বাবুল। দীর্ঘদিন বিনা মূল্যে যারা শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন, কলেজ সরকারি করন হওয়ার সংবাদের পরপরই তাদের বাদ দিয়ে অধ্যক্ষ আনোয়ার তার মনোনীত লোকজন নিতে অর্থ বাণিজ্যে মেতে ওঠেন।

কলেজ কমিটির নিয়োগ বোর্ডের সদস্যদের স্বাক্ষর জাল করে অবৈধ নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পাদনের পায়তারা চলমান রয়েছে বলেও একাধিক সূত্রে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

শেখ হাসিনা মহাবিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠা কালিন সদস্য ও নিয়োগ বোর্ডের সদস্য মোঃ নজরুল ইসলাম বলেন, অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসেন বাবুলের নিয়োগ প্রক্রিয়া-ই অবৈধ, তারপর কেন যে সে এগুলো করেন তা আমার বোধগম্য নয়। এছাড়াও তিনি আরো বলেন আমি অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসেন বাবুলকে বারবার নিষেধ করেছি যে আপনি দেশরত্ন শেখ হাসিনা মহাবিদ্যালয় নিয়ে এরকম বাণিজ্য চালিয়েন না, সে কারো কথা শোনেননা তাই আমি ঐ কলেজের কোনো বিষয় খোঁজ খবর নেই না।

নিয়োগ বাণিজ্যের বিষয় নিয়োগ বোর্ডের আরেক সদস্য, বরিশাল কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ অলিউল ইসলাম অলি বলেন, তার অনৈতিক কর্মকান্ডের খবর আমি শুনেছি তাই ঐ সম্পর্কে আমি কিছু বলবনা। তিনি আরো বলেন, ২০১৫ সালে যে সার্কুলার দেয়া হয়েছে তার বাহিরে কোনো নিয়োগ দিতে হলে নতুন সার্কুলারের মাধ্যমে করতে হবে।

পত্রিকার সার্কুলেশন জালিয়াতির বিষয়ে শিক্ষা অধিদপ্তরের ডেপুটি ডিরেক্টর মোঃ আমির হেসেন বলেন, অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসেন বাবুল যদি এহেন কর্মকাণ্ড করে থাকে, তার খেসারত তাকেই দিতে হবে। তিনি আরো বলেন আমি খোঁজ খবর নিয়ে জালিয়াতির বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিবো।

নিয়োগ বাণিজ্যের মূল হোতা শেখ হাসিনা মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ আনোয়ার হোসেন বাবুলকে প্রশ্ন করা হলে কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি, পরক্ষণেই নিউজ থামাতে মিডিয়া পাড়ায় দৌড়ঝাঁপ শুরু করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামে কলেজটিতে কিভাবে জামাত শিবিরের সদস্যরা চাকুরী পায়? এ নিয়ে সুশীল সমাজের একাধিক ব্যক্তিরা বলেন বিষয়টি যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করি। তারা আরো বলেন জালিয়াতির মাধ্যমে নিয়োগ বাণিজ্য করা ব্যক্তি কলেজের অধ্যক্ষ পদে থাকে তাহলে কলেজ সুনামের চেয়ে বদনামই কামাতে হবে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :