বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

রাজাপুরে অনগ্রসর শিক্ষার্থীদের স্বেচ্ছাশ্রমে কোচিং, দৃষ্টান্ত স্থাপন শিক্ষকদের

অনলাইন ডেস্ক : ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা অনগ্রসর শিক্ষার্থীদের জন্য স্বেচ্ছাশ্রমে কোচিং চালু করে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। পুরো বরিশাল বিভাগের শিক্ষকদের মাঝে এটি এখন আলোচনায়।

স্থানীয় ২৪ নং পাড়গোপালপুর সরকারী প্রাথমিক স্কুলের প্রধান শিক্ষক অর্চনা রানী রায় জানান, কোমলমতি শিক্ষার্থীরা রমজানের বন্ধে একমাস স্কুলে না এলে কিছুটা হলেও তারা শিক্ষায় মনোযোগ হারাবে এবং অনেকটা পিছিয়ে পড়বে। এমন চিন্তা থেকেই আমরা স্কুলের সব শিক্ষক মিলেমিশে ফ্রি কোচিং শুরু করেছি। এতে শিক্ষার্থীরা বেশ উপকৃত হবে বলে তিনি মনে করেন।

শিক্ষায় ঝালকাঠি জেলা জাতীয় পর্যায় দীর্ঘকাল থেকে এগিয়ে থাকলেও অনগ্রসর শিক্ষার্থীদের সংখ্যাও নেহাত কম নয়। বিশেষ করে, রাজাপুরে কৃষি নির্ভর অর্থনীতি গড়ে ওঠায় ছেলে-মেয়েদের পেছনে শিক্ষার জন্য আলাদা খরচ জোগাতে অধিকাংশ মানুষের হিমশিম খেতে হয়। এখানে প্রধান অর্থকরি ফসল হচ্ছে ধান ও পান। এছাড়া সুপারি, নারকেল এবং স্বল্পপরিসরে কুঠির শিল্প থাকলেও এসব খাত থেকে সংসারের চাহিদা মতো যোগান আসে না। এখানে গড় দারিদ্র্যের হার অনেক কম হলেও সংসারের সকল ব্যয় শেষে ছেলে-মেয়েদের টিউশনের খরচ জোগানোটা অনেকের জন্যই কষ্টকর।

এলাকাবাসী জানান, রমজান মাসে স্কুল বন্ধ থাকায় আমরা সকলেই চাই আমাদের ছেলে-মেয়েদেরকে প্রাইভেট মাস্টারের কাছে পড়াতে। যাতে তারা ক্লাসের পড়ায় একটু বেশি অগ্রসর হতে পারে। কিন্তু সাধ থাকলেও সাধ্য হয় না। স্কুলের এই উদ্যোগে আমরা যারপরনাই খুশি।

শিক্ষা অফিস থেকে পাওয়া তথ্যে দেখা যায়, গতবছর এই স্কুল থেকে পঞ্চম শ্রেণিতে ৩ টি ট্যালেন্টপুলসহ ৪টি বৃত্তি পেয়েছে।এছাড়া সমাপনী পরীক্ষায় গড়ে সবাই ভালো ফলাফল করেছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা আরো জানালেন, এই এলাকার শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষায় বেশ প্রতিযোগিতামূলক উৎসাহ লক্ষ করা যাচ্ছে। এটা একটা শুভলক্ষণ বলে তারা মনে করেন। তারা আরো জানান, এই স্কুলটির মতো সকলে চেষ্টা করলে কেউ আর শিক্ষায় পিছিয়ে থাকবে না। অবশ্য কয়েক বছর আগেও এই স্কুলের চিত্র ছিল সম্পূর্ণ বিপরীত। শিক্ষা অফিসের তথ্যে দেখা যায়- অতীতে স্কুলটি বি ক্যাটাগরির ছিল।

উল্লেখ্য, প্রকৃতির কবি জীবনান্দ দাশের স্বপ্নের নদী ধানসিঁড়ি উপকূলে রাজাপুর উপজেলার শহরতলি গ্রাম পাড়গোপালপুরে ১৯৪৪ খ্রিষ্টাব্দে এই স্কুলটি প্রতিষ্ঠা করেন যোগেন্দ্রনাথ বিশ্বাস।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঝালকাঠি জেলার সাবেক একজন জেলা প্রশাসক বলেন, শিক্ষায় চরমভাবে পিছিয়ে থাকায় রাজাপুর এলাকা ছিল অপরাধ জগতের এক অভয়রাণ্য। বেশ কয়েকটি গ্রামের নাম মুখে আসলেই ডাকাতের ভয়ে সকলের দেহ-মন শিউরে উঠতো।

এমনকি রাজাপুরকে মনে করা হতো ডাকাতদের রাজধানী। কোনো কোনো এলাকা ছিল শুধুই সিঁধেল চোরদের বসতি। পাশের একটি গ্রাম সম্পর্কে বলা হতো গরুচোরদের রাজা থাকেন ওখানে। সত্যিই গরু চুরি হলে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের কাছে চুরি যাওয়া গরুটির দামের অর্ধেক টাকা দিলেই গরু ফেরত পাওয়া যেতো।

তবে, এলাকাবাসি মতে, পূর্বের অবস্থার তুলনায় শিক্ষাক্ষেত্রে অনেকটা উন্নতি ঘটেছে। যুবকরা চাকরি কিংবা ব্যবসায় মনোযোগী হচ্ছেন বেশি।

তবে চুরি-ডাকাতি কমলেও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড তেমন কমেনি। যুবকদের মাঝে মাদক ও গ্যাং ক্রাইম প্রবণতা নিয়ে উদ্বিগ্ন অনেকেই।

শেয়ার করুন :

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :

আমাদের সকল আপডেট পেতে মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন প্লে-ষ্টোর থেকে।