রিংগু মাস্টার মশার কয়েলে ক্যান্সার ও বিকলাঙ্গ হওয়ার ঝুঁকি | বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – রিংগু মাস্টার মশার কয়েলে ক্যান্সার ও বিকলাঙ্গ হওয়ার ঝুঁকি রিংগু মাস্টার মশার কয়েলে ক্যান্সার ও বিকলাঙ্গ হওয়ার ঝুঁকি – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম


রিংগু মাস্টার মশার কয়েলে ক্যান্সার ও বিকলাঙ্গ হওয়ার ঝুঁকি

প্রকাশ: ১২ মে, ২০১৯ ৪:২৮ : অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ রিংগু মাস্টার মানহীন মশার কয়েলে ঝুঁঁকিতে পড়েছে জনস্বাস্থ্য। এ কয়েলে ব্যবহার করা হচ্ছে মানবদেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর রাসায়নিক। ফলে কয়েলের বিষাক্ত ধোঁয়ার প্রভাবে ক্যান্সার ও শ্বাসনালীতে প্রদাহসহ বিকলাঙ্গ হওয়ার ঝুঁকি বাড়ছে। বিশেষ করে শিশুদের ওপর এটি দ্রুত প্রভাব ফেলছে, যা জটিল রোগব্যাধিও সৃষ্টি করতে পারে। সংশ্লিষ্টরা জানান, একদিকে সরকারের তদারকির ঘাটতি অন্যদিকে জনসচেতনতার অভাবেই ক্ষতিকর রিংগু মাস্টার কয়েল পৌঁছে যাচ্ছে বরিশালের ঘরে ঘরে- যা মানুষের জীবনকে করে তুলছে চরম ঝুঁকিপূর্ণ।

সম্প্রতি সিঙ্গাপুরে অবস্থিত একটি রাসায়নিক পরীক্ষাগারে বাংলাদেশের বিভিন্ন বাজার থেকে সংগৃহীত রিংগু মাস্টার কয়েলসহ প্রায় ২৪টি মশার কয়েলে একটিভ ইনগ্রেডিয়েন্ট বা স্বক্রিয় রাসায়নিক উপাদানের উপস্থিতি পরীক্ষা হয়। তাতে দেখা যায়, রিংগু মাস্টারসহ বেশিরভাগ কয়েলেই মাত্রাতিরিক্ত ‘একটিভ ইনগ্রেডিয়েন্ট’ ডি-এলথ্রিন এবং মেটোফুলথ্রিন রয়েছে। সিঙ্গাপুরের ওই রিপোর্টে দেখা যায়, রিংগু মাস্টারসহ ৮টি মশার কয়েলে ডি-এলথ্রিনের পরিমাণ দশমিক ১০ থেকে দশমিক ৩০ পর্যন্ত। এছাড়া আরও রিংগু মাস্টার কয়েলে বায়োএলথ্রিন, ডিমেফুলথ্রিন, এসবায়োথ্রিনসহ বিভিন্ন ক্ষতিকর রাসয়নিক বা ‘একটিভ ইনগ্রেডিয়েন্ট’র মাত্রতিরিক্ত উপস্থিতি পাওয়া গেছে।

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) নির্দেশনা অনুযায়ী মশার কয়েলে সর্বোচ্চ দশমিক ০৩ মাত্রার ‘একটিভ ইনগ্রেডিয়েন্ট’ ব্যবহার করা যেতে পারে। এই মাত্রা শুধু মশা তাড়াতে কার্যকর, মারতে নয়। কিন্তু বাস্তবে দেখা যায়, অসাধু ব্যবসায়ীদের বাজারজাত করা রিংগু মাস্টার কয়েল শুধু মশাই নয়, বিভিন্ন পোকামাকড়, তেলাপোকা এমনকি টিকটিকিও মেরে ফেলতে সক্ষম।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, মানহীন রিংগু মাস্টার কয়েলে ক্ষতিকর রাসায়নিকের যথেচ্ছ ব্যবহারের ফলে ক্যান্সার, শ্বাসনালীতে প্রদাহসহ বিকলাঙ্গতার মতো ভয়াবহ রোগ হতে পারে। এমনকি গর্ভের শিশুও এসব ক্ষতির শিকার হতে পারে। খাদ্যে ফরমালিন ও পানিতে আর্সেনিকের প্রভাব যেমন দীর্ঘমেয়াদি, তেমনি রিংগু মাস্টার কয়েলের বিষাক্ত উপাদান মানুষের শরীরে দীর্ঘমেয়াদি জটিল রোগের জন্য দায়ী। এছাড়া নিত্যদিন মাথা ব্যথা বা চোখ জ্বালাপোড়া করার মতো নানা সমস্যাও হচ্ছে।

রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা কেন্দ্রের (আইইডিসিআর) পরিচালক বলেন, এ ধরনের রাসায়নিকের মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার সব বয়সী মানুষের জন্যই ক্ষতিকর। তবে শিশুদের ওপর এটি দ্রুত প্রভাব ফেলে। তিনি বলেন, প্রতিনিয়ত এ ধরনের রাসায়নিকের সংস্পর্শ মানবদেহে তাৎক্ষণিকভাবে নয়, সুদূরপ্রসারী ক্ষতি করে। জটিল রোগব্যাধি সৃষ্টি করে। বিশেষ করে, শ্বাসতন্ত্রকে ক্ষতিগ্রস্ত করে মারাত্মকভাবে।
বিদ্যমান বালাইনাশক অধ্যাদেশ- (পেস্টিসাইড অর্ডিন্যান্স ১৯৭১ ও পেস্টিসাইড রুলস ১৯৮৫) অনুসারে মশার কয়েল উৎপাদন, বাজারজাত ও সংরক্ষণে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের অনুমোদন বাধ্যতামূলক। অধ্যাদেশ অনুযায়ী- অধিদফতরের অনুমোদন পাওয়ার পর পাবলিক হেলথ প্রোডাক্ট (পিএইচপি) নম্বর ও বিএসটিআই’র অনুমোদন নিয়েই সংশ্লিষ্ট কোম্পানিকে বালাইনাশক পণ্য উৎপাদন ও বাজারজাত করতে হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মারাত্মক ক্ষতিকর রিংগু মাস্টার কয়েল উৎপাদন ও বাজারজাত করছে বেনামি কারখানা। ভুয়া পিএইচপি নম্বর ও বিএসটিআইর লোগো ব্যবহার করে আকর্ষণীয় মোড়কে এসব কয়েল বাজারে ছাড়া হচ্ছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, মাত্রাতিরিক্ত ‘একটিভ ইনগ্রেডিয়েন্ট’ সমৃদ্ধ রিংগু মাস্টার কয়েলের কার্যকারিতা বাজারে প্রচলিত সুপ্রতিষ্ঠিত বৈধ ব্র্যান্ডের চেয়ে অনেক বেশি। তাই স্বাভাবিকভাবেই ক্রেতারা অননুমোদিত কয়েলের প্রতিই বেশি আকৃষ্ট হচ্ছেন।

বাজারে যেসব কয়েল পাওয়া যায় তাতে কতটুকু মাত্রায় ইনগ্রেডিয়েন্ট ব্যবহার করা হয় তা এখন আমাদের দেখার বিষয়। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নিয়মিত মনিটরিংয়ের মাধ্যমে এসব কয়েলের মান যাচাই করা দরকার বলে মনে করেন সচেতন নগরবাসী। এছাড়া দেশের বাইরে থেকে মশার কয়েল আমদানি করার ক্ষেত্রে একটি সুর্নিদিষ্ট নীতিমালা গঠনে গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের পরিচালক (উদ্ভিদ সংরক্ষণ উইং) বলেন, অধিদফতরের অনুমোদন ছাড়া কেউ কয়েল উৎপাদন করতে পারে না। কিন্তু কিছু কারখানা আমাদের অনুমোদন ছাড়াই কয়েল প্রস্তুত ও বাজারজাত করছে বলে অভিযোগ এসেছে। অভিযোগের ভিত্তিতে আমাদের কাজ চলছে।