বরিশাল প্রেসক্লাবের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার, বাধা নেই নির্বাচনে | বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – বরিশাল প্রেসক্লাবের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার, বাধা নেই নির্বাচনে বরিশাল প্রেসক্লাবের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার, বাধা নেই নির্বাচনে – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম
বরিশাল প্রেসক্লাবের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার, বাধা নেই নির্বাচনে – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম

বরিশাল প্রেসক্লাবের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার, বাধা নেই নির্বাচনে

প্রকাশ: ২৭ অক্টোবর, ২০১৯ ৯:৫৬ : অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক  :: শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্র সংশোধনের জন্য সদস্যদের দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে। গতকাল রবিবার (২৭ অক্টোবর) শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবের নির্বাচন স্থগিত রাখার মামলার শুনানি শেষে বাদীদের আবেদনের প্রেক্ষিতে মামলা প্রত্যাহারের আবেদন মঞ্জুর করেন আদালতের বিচারক। বাদীপক্ষ স্ব-শরীরে আদালতে হাজির হয়ে মামলা প্রত্যাহারের আবেদন জানালে শুনানি শেষে আদালতের বিচারক তা মঞ্জুর করেন।

জানা গেছে, ২০১৭ সালের ৫ নভেম্বর শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবের সহযোগী সদস্য কাজল ঘোষ, শাহজাহান হাওলাদার, এম ফোরকান, মোঃ আনোয়ার হোসেন, মনবীর আলম খান ও সদস্য জিয়া উদ্দিন বাবু গঠনতন্ত্র সংশোধনপূর্বক প্রেসক্লাবের নির্বাচন স্থগিত রাখার আবেদন জানান। মামলায় বিবাদী করা হয় প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসেনকে। মামলা পরবর্তী আদালত বিবাদীগণের উপর কারণ দর্শানোর নোটিশ ও পরবর্তীতে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আদেশ দেন। ফলে দীর্ঘ ১ বছর ৬ মাস পর্যন্ত প্রেসক্লাবের নির্বাচন স্থগিত থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় এ বছরের ২৪ অক্টোবর শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল বাদীগণকে মামলাটি প্রত্যাহার করে নেওয়ার অনুরোধ জানান। তার অনুরোধে বাদীপক্ষ বাস্তবতার নিরীখে প্রেসক্লাবের কর্মকান্ড গতিশীল করার লক্ষ্যে মামলা প্রত্যাহারে সম্মতি দেন।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল বাদীপক্ষ আদালতে হাজির হয়ে মামলাটি প্রত্যাহারের আবেদন করলে আদালত আবেদন মঞ্জুর করেন। বাদীপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাড. আজাদ রহমান। বিবাদীদের পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাড. মানবেন্দ্র বটব্যাল। বাদীপক্ষ মামলায় প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্র সংশোধন ও সংযোজনের জন্য বেশ কয়েকটি বিষয় উল্লেখ করেছিলেন।

তাদের দাবিগুলো তুলে ধরা হলো-
১. মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের সাথে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে সম্পৃক্ত বা নীতি আদর্শ পালনকারী কোন সাংবাদিক বা ব্যক্তি, কোন সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ বা সমাজের নিন্দিত কোন ব্যক্তি প্রেসক্লাবের সদস্য পদ পাওয়ার জন্য আবেদন করতে পারবেন না। বা করলে তা সরাসরি অগ্রাহ্য হওয়ার বিধান রাখা হবে। (গঠনতন্ত্রের অনুচ্ছেদ-১)।

২. শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত এর ১৯৭৫ সালের ১৫ ই আগস্ট শাহাদত বরণ দিবস উপলক্ষে প্রতি বছর ঐ দিন প্রেসক্লাবে তাঁর প্রতি সম্মান জ্ঞাপনের লক্ষ্যে কোরআন খানী, মিলাদ মাহফিল, স্মরণ সভা ও দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ গঠনতন্ত্রে সংযোজিত করতে হবে।

৩. শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য স্থাপনের পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নকারী স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ এমপি বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপনে তার এই অনবদ্য ভূমিকা রাখার জন্য তাঁর নাম প্রেসক্লাব গঠনতন্ত্রে সংযোজন করতে হবে।

৪. ২৫ শে ডিসেম্বর খ্রিস্টানদের ধর্মীয় উৎসবের বড় দিন। ঐ দিন সকাল ১০ টা থেকে একটানা রাত ১১ টা পর্যন্ত সাধারণ সভা ও বার্ষিক নির্বাচনের দিন ও সময়সূচি পরিবর্তন করে সাধারণ সভা ও নির্বাচনের তারিখ ও সময়সূচি পরিবর্তন করতে হবে। (প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্রের অনুচ্ছেদ-৪ এর ধারা-২)।

৫. বরিশাল প্রেসক্লাবের যে সকল সহযোগী সদস্যদের সদস্য পদের বয়স তিন বছর অতিক্রম হবে, তাদের কর্মকান্ড বিবেচনাপূর্বক পূর্ণ সদস্য পদ প্রদানের বিধান সহজতর করতে হবে। (প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্রের অনুচ্ছেদ-২ এর ধারা-১০)।

৬. বরিশাল প্রেসক্লাব সদস্য পদ প্রদানের লক্ষ্যে বছরে দুইবার নির্বাহী কমিটির সভায় দরখাস্ত/আবেদন উপস্থাপন করে উপস্থিত সদস্যদের মধ্যে ৪ অংশ (তিন চতুর্থাংশ) হ্যাঁ সূচক ভোট পাওয়ার পর সদস্য পদ প্রদানের বিধানের স্থলে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে সদস্যপদ প্রদানের বিধানের ব্যবস্থা করতে হবে। (প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্রের অনুচ্ছেদ-২ এর ধারা-৩)।

৭. প্রেসক্লাবের সদস্য পদ পাওয়ার পরে তিন বছর অতিক্রম না হলে কোন সদস্য বা সদস্যরা প্রেসক্লাব নির্বাচনে অংশ নিতে পারেন না এ বিধান বাতিল করতে হবে। (প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্রের অনুচ্ছেদ-৩ এর ধারা-৩)।

৮. প্রেসক্লাব নির্বাচন প্রতি বছর না করে ২ বছর পর পর করার বিধান করতে হবে। কার্যকরী পরিষদের মেয়াদকাল ১ বছরের পরিবর্তে ২ বছর করতে হবে। (প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্রের অনুচ্ছেদ-৪ এর ধারা-২)।

৯. পর পর ২ বছর কোন সদস্য সাধারণ সম্পাদক বা সভাপতির দায়িত্ব পালন করলে পরের বছর প্রেসক্লাব নির্বাচনে ঐ পদে অংশগ্রহণ না করতে পারার বিধান বাতিল করতে হবে। (প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্রের অনুচ্ছেদ-৩ এর ধারা-২)।

১০. প্রেসক্লাবের নির্বাচনে যে সকল প্রার্থী নির্বাচিত হবেন তাদের দায়িত্বভার গ্রহণের পূর্বে শপথ বাক্য পাঠের বিধান গঠনতন্ত্রে সংযোজন করতে হবে।

১১. কোন সহযোগী সদস্য দুই বছরের মধ্যে প্রেসক্লাবের পূর্ণ সদস্য পদ লাভ করতে ব্যর্থ হলে ক্লাবে তাহার সহযোগী সদস্য পদ বাতিল হবে।

১২. প্রেসক্লাবের কোন সদস্য বা কোন ব্যক্তি দুর্নীতি বা অনৈতিক কোন কর্মকাÐের জন্য কোন মামলায় ২ বছরের অধিক সাজাপ্রাপ্ত হলে তিনি প্রেসক্লাবের সদস্য পদে আর বহাল বা সদস্য পদের জন্য আবেদন করতে পারবেন না। গঠনতন্ত্রে বিষয়টি সংযোজন করতে হবে।


সকল নিউজ