বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

শিরিনের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশের অভিযোগ অস্বীকার করলেন রুপন

বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডেস্ক :: স্থানীয় কয়েকটি পত্রিকায় বরিশালের বিএনপি নেত্রী বিলকিস জাহান শিরিনের ত্রাণ নিয়ে চাঁদাবাজি শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। সংবাদটি প্রকাশ হওয়ার পর পরই অনেকটা বিএনপি ঘরনা নেতাকর্মীদের মধ্যে আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়েছে। শিরিনপন্থিদের ধারনা সংবাদটি সাবেক মেয়র আহসান হাবিব কামালের পুত্র কামরুল আহসান রুপন সংবাদিকদের ম্যানেজ করে প্রকাশ করিয়েছেন।

এমন অভিযোগের বিষয়ে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও বিএনপি নেতা আহসান হাবিব কামালের পুত্র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলদের সাবেক নেতা কামরুল আহসান রুপনের সাথে সরাসরি কথা হয় বরিশাল ক্রাইম নিউজের এ প্রতিবেদকের সাথে।
এসময় কামালপুত্র কামরুল আহসান রুপনকে বিভিন্ন প্রশ্ন করা হয়।

প্রথমেই তাকে প্রশ্ন করা হয় বিএনপি নেত্রী বিলকিস জাহান শিরিনের বিরুদ্ধে মিডিয়ায় যে সংবাদ প্রকাশ হয়েছে সেই সংবাদটি আপনি সাংবাদিকদের দিয়ে প্রকাশ করেছেন এমন এমটি অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগের বিষয়টি আপনি শুনেছেন কি? এর উত্তরে তিনি বলেন, নিন্দুকরা সমালোচনা করতেই পারে। এসকল কথা আমি কানে নেই না।

শিরিনের বিরুদ্ধে সংবাদে যে অভিযোগ তোলা হয়েছে সেটি আসলে কতটা সত্য যদি বলতেন? এমন প্রশ্নের জবাবে রুপন বলেন, আমার জানামতে সাংবাদিকরা তাদের তথ্যের ভিত্তিতেই সংবাদ প্রকাশ করে। কারও কথায় তারা সংবাদ করেনা। আর আমার কথায় কেনইবা তারা সংবাদ প্রকাশ করবে। আর নিজ দলীয় নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে সংবাদ করিয়ে আমার লাভ কি? সেতো আমার প্রতিদ্বন্দ্বিনা। সে বিএনপির বড় মাপের নেতা।

পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদটিতো আপনি দেখেছেন? এ প্রশ্নের জবাবে রুপন বলেন, হ্যা দেখেছি। সংবাদিটিতে বিএনপি নেত্রী শিরিনের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তোলা হয়েছে সেটা আপনার দৃষ্টিতে কতটুকু সত্য বলে মনে হয়।
এ প্রশ্নের জবাবে রুপন বলেন, আসলে এসকল বিষয়ে দলের সিনিয়র নেতাদের কাছে জানতে চাওয়া উচিত, আমার কাছে কেন।

এরপরেও তার ধারণা চাইলে তিনি বলেন- সংবাদে দেখেছি চাঁদা তোলার একটি বিষয়। আমি এ বিষয়টি নিয়ে বলবো, কেউ যদি চাঁদা দেয় সে কাউকে বলবেনা আর কেউ যদি চাদা উত্তোলন করে সেও কারও কাছে বলবেনা। আমি বলবো ত্রাণ দেয়া একটি মহত কাজ চাঁদা তুলেও যদি কেউ সঠিক ভাবে অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ সহয়তা দিয়ে থাকে নিঃসন্দেহে সেটাও একটি মহত কাজ। আমি এ বিষয়টাকে সাধুবাদ জানাই। তবে যদি অর্থ উত্তোলন করে যদি সঠিক ভাবে ত্রাণ সহয়তা না দিয়ে থাকে তাহলে তার নৈতিক অবক্ষয় হয়েছে বলে আমি মনে করি।

ত্রাণ সহয়াতা দেয়ার নামে তিনি যে চাঁদা তুলেছেন এমন বিষয় তিনি কিছু জানেন কিনা এমন এক প্রশ্নের জবাবে রুপন বলেন, সকল বিষয়ই আমি সংবাদের মাধ্যমে জানতে পেরেছি। আগে এসকল বিষয়ে আমি অবগত ছিলাম না।

বিএনপি নেত্রী শিরিনতো আপনার বাবা আহসান হাবিব কামালের সাথেই রাজনীতি করতো কিন্ত হঠাত এত দুরত্ব কেন?
এ পশ্নের জবাবে রুপন বলেন, এ বিষটা আমার চেয়ে তিনিই ভাল বলতে পারবেন। তার পরেও আমি আপনার কাছে জনাতে চাই। তিনি বলেন ২০১০ সালে বরিশাল জেলা বিএনপির প্রস্তাবিত কমিটিতে আমার বাবাকে (আহসান হাবিব কামাল) সভাপতি ও নজরুল ইসলাম রাজন চাচাকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে প্রায় চুড়ান্ত করা হয়েছিলো। নজরুল ইসলাম রাজন চাচার একক একটি প্রোগ্রামকে কেন্দ্র করে ওই কমিটিতে যুগ্ম সম্পাদক পদে থাকা বিলকিস জাহান শিরিন আমার বাবার সরলতার সুযোগ নিয়ে ভুলভাল বুঝিয়ে নজরুল চাচাকে সরিয়ে তিনি নিজেই সাধরন সম্পাদকের পদটি ভাগিয়ে নিয়েছিলেন। যে বিষয়টি তখনকার প্রায় ৮০ শতাংশ বিএনপি নেতাকর্মীরা মেনেনিতে পারেনি। এমনকি তারা বিদ্রোহও গড়ে তুলেছিলেন। পরবর্তীতে ২০১৩ সালের সিটি নির্বাচনে আমার বাবার পরিবর্তে শিরিন নিজেই দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার জন্য নারায়নগঞ্জের আইভি রহমানকে মডেল হিসেবে দেখিয়ে চক্রান্ত শুরু করে। বিষয়টি আমরা জানলেও নির্বাচিত হওয়ার পরে তার সাথে সু-সম্পর্ক ধরে রাখার চেষ্টা করি। আমার বাবা মেয়র থাকাকালিন কৌশলে অনেক সুবিধাও নিয়েছেন তিনি। কিন্তু হঠাত করে উচ্চবিলাশি শিরিন আমার বাবার বিরুদ্ধে পুনরায় ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। বিভাগীয় সাংগঠনিক পদটি পাওয়ার পর কখনওই আমার বাবার সাথে যোগাযোগ করেনি।

করোনা উপলক্ষে আপনার বাবা বা আপনার পরিবার অসহায়দের জন্য কোন কার্যক্রম আছে কিনা জানতে চাইলে কামরুল আহসান রুপন বলেন- আমার বাবা যেহেতু বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ছিলেন এবং বরিশাল জেলা ও মহানগর বিএনপির সাবেক সভপতির দায়িত্তে ছিলেন সেহেতু অসহায় মানুষের পাশে দাড়ানোটাই সাভাবিক। কিন্তু অসহায় মানুষের পাশে দাড়ালেই যে সেটা প্রচার করতে হবে এমনটা কেন? তারপরেও আপনি যেহেতু জানতে চেয়েছেন বলি তাহলে। প্রথমে নিজ এলাকায় নিম্ন ও নিম্ন মধ্যবিত্ত ২৬৭ অসহায় পরিবারের মাঝে আমার বাবার পক্ষে বাড়ি বাড়ি গিয়ে আমি ও দলীয় নেতাকর্মীদের দিয়ে ত্রাণ সহয়তা প্রদান করেছি।

পরবর্তীতে ১২ এপ্রিল নগরীর ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের প্রত্যেক অসহায় পরিবারের মাঝে ৪ দিনব্যপি আর্থিক সহয়তা প্রদান করা হয়। ১৫ এপ্রিল ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের বিভিন্ন অসহায় পরিবারকে (প্রায় ৮শ) আর্থিক সহয়তা প্রদান করা হয়েছে।

বরিশালের বিভিন্ন জেলা উপজেলা থেকে কমিটি গঠনের বিনিময়ে আর্থিক লেনদেনের যে বিষয়টি সংবাদে প্রকাশ হয়েছে সেটির বিষয়ে আপনি কিছিু জানেন কিনা? এতে রুপনের ভাষ্য আর্থিক লেননের মাধ্যমে কমিটি গঠনের বিষয়টি ওপেন সিক্রেট। এ বিষয়টি বরিশাল বিভাগের বিএনপি সকল নেতা-কর্মীরা অবগত যে সে চাঁদাবাজী করে।

আর্থিক লেনদেন করা হয়েছে এমন কোন দলীয় নেতার কথা বলতে পারবে? এর উত্তরে তিনি বলেন অবশ্যই অসংখ্য। আপনি কতজনের তালিকা নিবেন।

তবে আর্থিক লেনদেনসহ তার বিরুদ্ধে যে সকল অভিযোগ উঠেছে সকল অভিযোগের বিষয়ে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দদের তদন্ত করার জন্য আমি অনুরোধ করি। তদন্ত করলে অনেক কিছুই বেরিয়ে আসতে পারে।

শেয়ার করুন :

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :

আমাদের সকল আপডেট পেতে মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন প্লে-ষ্টোর থেকে।