বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

সম্পাদকীয় : অনুমোদন থাকলেও এ সময় বাণিজ্য মেলার আয়োজন মোটেই বিবেচনা প্রসূত নয়

এ সময়ে সারা বিশ্বের আলোচিত এর ঝুঁকি থাক বা না থাক সর্বাধিক আতংকিত বিষয়টির নাম করোনা ভাইরাস। যে করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি এড়াতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালনের জন্য জনসমাগম পরিহার করা হয়েছে, স্কুল-কলেজের অ্যাসেম্বলি মাঠে শিক্ষার্থীদের জড়ো না করে শ্রেণীকক্ষে সম্পন্নের ঘোষণা এসেছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করা হবে কি হবে না তা নিয়ে আলোচনা অব্যাহত আছে, সবধরনের জনসমাগমে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে, সেই সময় বরিশালে বাণিজ্য মেলার উদ্বোধন সত্যিই বিস্ময়কর।

এ বিষয়ে গতকাল প্রকাশিত “বরিশালে শুরু হলো বাণিজ্য মেলা : করোনা ভাইরাস আতংক চরমে” শীর্ষক সংবাদ তথ্যমতে, শুক্রবার বাণিজ্য মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনে বিশিষ্টজনেরা কেউই উপস্থিত থাকতে রাজি হননি বলে নামকাওয়াস্তে দোয়া মোনাজাতের মাধ্যমে শুরু হয় ওই মেলা। এ বিষয়ে বরিশালের সিভিল সার্জনের বক্তব্য হলো, বাণিজ্য মেলা সম্পর্কে তারা কিছুই জানেন না। তিনি এটাও বলেন, বেশি লোক সমাগমের জায়গায় বেশিক্ষণ অবস্থান না করার জন্য স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে বেতার, টেলিভিশন এবং পত্র-পত্রিকায় প্রচার চালানো হচ্ছে। এমনি একটি প্রেক্ষাপটে মেলার আয়োজকরা কোন্ যুক্তিতে বাণিজ্য মেলা চালু করতে পারেন সত্যিই তা আমাদেরও বোধগম্য নয়। বরিশাল জেলা প্রশাসন থেকে প্রশাসনের সকল অনুরোধ উপেক্ষা করে মেলার আয়োজকরা বাণিজ্য মেলা চালু করেছেন, এমনকি তারা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনাও মানছেননা। এখন প্রশ্ন হলো এই আয়োজক কারা?

তারা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মানছেননা, জেলা প্রশাসনের অনুরোধ উপেক্ষা করছেন এবং স্বাস্থ্য বিভাগকেও আড়ালে রেখে ব্যাপক জনসমাগমের আয়োজন হিসেবে বাণিজ্য মেলা শুরু করেন কি ভাবে? সংবাদে অবশ্য এ প্রশ্নও উত্থাপন করা হয়েছে পুলিশের বিশেষ অনুমোদন কি ভাবে পেলেন আয়োজকরা? এ বিষয়টিও পরিষ্কার করেছে পুলিশের এক কর্মকর্তা। ঢাকার বাণিজ্য মেলা থেকে শুরু করে দেশের বড় বড় শহরের বাণিজ্য মেলার একটি রুটিন করে থাকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। অর্থাৎ ঢাকা বাণিজ্য মেলার পরে কোন্ শহরে, কখন বাণিজ্য মেলার অনুমোদনও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে দেয়া হয়ে থাকতে পারে। তখন হয়তো করোনা ভাইরাস আতংক ছড়ায়নি। সে হিসেবে বরিশাল বাণিজ্য মেলারও অনুমোদন এসেছে।

তাই বলে দেশ তথা বিশ্ব বাস্তবতাকে উপেক্ষা করতে হবে এটার কোন যুক্তি আছে বলে মনে করিনা। আমরা শুরুতেই উল্লেখ করেছি সারা বিশ্বে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের বাস্তবতাকে সামনে রেখেই সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালনের আয়োজন যেখানে কাট-ছাঁট করা হয়েছে, জনসমাগম বাতিল করা হয়েছে, সেখানে বরিশাল বাণিজ্য মেলার আয়োজকরা কোন্ স্বর্গে বাস করছেন সেটাই সবচেয়ে বড় প্রশ্ন। এ দিকে বরিশাল চেম্বার অব কমার্সের সভাপতিও বরিশালে নেই। তিনি আমাদের প্রতিনিধিকে মুঠোফোনে বলেছেন, তিনি রোগী নিয়ে ঢাকায় ব্যস্ত আছেন। জেলা প্রশাসকের বক্তব্য হলো যারা বাণিজ্য মেলার অনুমতি পেয়েছেন তাদের জনস্বার্থে কয়েকদিন পরে মেলা চালুর পরামর্শ দেয়া দেয়াছিল।

কারণ স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী জনসমাগমের ব্যাপারে নিষেধ করেছেন। কিন্তু সেসব উপেক্ষা করেই মেলা চালু করা হয়েছে। সবচেয়ে বড় বিষয় হলো মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার পর্যন্ত বলেছেন, করোনা ভাইরাস আতংকের মধ্যে বরিশাল বাণিজ্য মেলা উদ্বোধন হবে এটা তারা জানতেন না। তাহলে সঙ্গত: কারণেই প্রশ্ন আসে এই তারা কারা? তারা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা পর্যন্ত উপেক্ষা করে জেলা প্রশাসনের অনুরোধ না মেনে পুলিশ প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য বিভাগকে আড়ালে রেখে বাণিজ্য মেলা চালু করেন, তাও আবার চেম্বার সভাপতির অনুপস্থিতিতে? আসলে গোটা বিষয়টি বড়ই গোলমেলে মনে হচ্ছে আমাদের। তার পরেও আমাদের প্রশ্ন আছে।

যেমন বাণিজ্য মেলার আয়োজকরা কি সত্যিই মনে করেন এবারের মেলার পূর্বেরমত লোক সমাগম ঘটবে আর বাণিজ্য জমবে? আমরা কিন্তু সেটা মনে করিনা। কেননা দেশে করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি থাক বা না থাক এমন কোন বাসা বাড়ি নেই যেখানে এটি নিয়ে আলোচনা হয়না। সেক্ষেত্রে বাস্তবতার নিরীখেই বলা যায়, এ সময় বাণিজ্য মেলার বাণিজ্য জমার কোন সুযোগ নেই। তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বরিশাল বাণিজ্য মেলার কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। আয়োজকদের লোকসানের ঘানিই টানতে হবে এটাই এ সময়ের বাস্তবতা। সুতরাং ওই মেলা আর সামনের দিকে না টানাই ভালো।

সম্পাদনা : এমএম আমজাদ হোসাইন

শেয়ার করুন :

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :

আমাদের সকল আপডেট পেতে মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন প্লে-ষ্টোর থেকে।