বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

সম্পাদকীয় : দেশে এখন যতটানা করোনা ভাইরাস আতংক তার চেয়ে বেশি কেনা-কাটার হুতাশ

দেশে এখন করোনা ভাইরাস আতংকে যতটা না  হা-হুতাশ, তার চেয়ে হুতাশ চলছে কেনা-কাটা নিয়ে। কে শুনছে কার কথা। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় যতই বলুক, বর্তমানে দেশে কোন নিত্যপণ্য মালামাল ও চালের কোন সংকট নেই, তা যে কেউ কানেই তুলছেনা ওই হুতাশে। ভারত পেঁয়াজ রপ্তানী বন্ধ করে দেয়ার পর যে ভাবে রাতারাতি পেঁয়াজ সোনার হরিণ হয়ে উঠেছিল, বর্তশানে দেশি পেঁয়াজ বাজারে থাকার পরও যে ভারত থেকেও আমদানী শুরু হয়েছে তাতেও পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধির একমাত্র কারণ ও হুতাশ।

তবে এর মধ্যে অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজি যে নেই তাও বলা যাবে না। করোনা আতংক এখন গোটা বিশ্বময়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এটিকে বৈশ্বিক দুর্যোগ বলার পর আতংকটা আরো বেড়ে যায়। প্রকৃত পক্ষে এখনো করোনা ভাইরাসের কোন প্রতিষেধক আবিষ্কার বাজারে প্রচলিত কয়েকটি ওষুধ যে করোনা ভাইরাস দমনে কার্যকর ভূমিকা রাখছে তাও মানতে চাইছেনা কেউ, যদিও জাপানী ওই তথ্যকে চীনও স্বীকার করে নিয়েছে। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট ভিন্ন।

ভারতে মৃত্যুর খবর, নরেন্দ্র মোদির করোনা নিয়ে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ, বাংলাদেশে একজনের মৃত্যু, অন্তত ২০ জন আক্রান্ত, হোম কোয়ারেন্টাই মানছেননা বিদেশ ফেরতরা, ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে বিভিন্ন দেশ থেকে প্রবাসীদের ফিরে আসা, ইজতেমা মাঠে কোয়ারেন্টাইন ব্যবস্থা চালুতে সেনাবাহিনী নিয়োগ ইত্যাকার নানা ঘটনার প্রেক্ষিতে এবং বিশেষ করে কয়েকটি জেলায় যানবাহন চলাচল সীমিতকরণ নিয়ে নিত্য পণ্যের মূল্যে ছুটছে পাগলা ঘোড়া। এ বিষয়ে জনৈক ক্রেতা চারদিন পূর্বে যে বালাম চাল ৫৪ টাকা কেজি দরে কিনে গতকাল আর এক বস্তা চাল আনতে যায়, দেখা গেল একই দোকানী ওই একই চালের দাম রাখল ৫৬ টাকা কেজি দরে। কেজি প্রতি ওই দুই টাকা বৃদ্ধিই হুতাশের ফসল। কেননা ওই ব্যক্তির সহসাই আর চালের প্রয়োজন ছিল না। এমনি হুতাশেই বেড়ে গেছে অন্যান্য মালামালের দামও। ফলে জরিমানা করেও মানুষের হুতাশ প্রশমন করা যাচ্ছে না।

এই হুতাশের পেছনে আবার সর্বাধিক কাজ করছে গুজব এবং একশ্রেণীর মতলববাজের মাধ্যমেই এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখছে। এ দিকে সরকারও বসে নেই। করোনা মোকাবেলায় বিভিন্ন পদক্ষেপ নিলেও একশ্রেণীর মতলববাজ তাতেও বিরূপ মন্তব্যের সুযোগ পাচ্ছে। এ ব্যাপারে বলা যায়, করোনা মোকাবেলায় সম্প্রতি অর্থমন্ত্রণালয় যে ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে, সেটিকেও মতলববাজরা দেখছে বাঁকা চোখে।

এ ব্যাপারে এক মতলববাজের প্রশ্ন আর মন্তব্য হলো ইতোপূর্বে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় করোনা মোকাবেলার জন্য একশ’ কোটি টাকা বরাদ্দ চাইলেও ওই সময় দেয়া হয়েছিল মাত্র ৫০ কোটি টাকা। অথচ সেই অর্থ মন্ত্রণালয়ই যখন স্বেচ্ছায় ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে, তখন বুঝতেই হবে অবস্থা বেগতিক। মূলত: মতলববাজরা এভাবেই ভালো কাজেও মন্দ খুঁজে বেড়ায় আর তাতেই জনমনে সৃষ্টি হয় আতংক এবং হুতাশ। ওই হুতাশের ফসল হিসেবে সম্প্রতি অধিকাংশ মানুষই যে হারে বাজার করেছে তাতে মনে করি সামনের ২/৩ মাস তাদের কারোরই সংকটে পড়তে হবে না। সেক্ষেত্রে ক্রেতার অভাবে বাজার দর কমার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেয়া যায় না বলে আমরা মনে করি।

এ দিকে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রাকৃতিক কারণেই সূর্যের চারপাশে যে বলয় দেখা গেছে তা নিয়েও অজ্ঞতাপ্রসূত মন্তব্যের ঝড় যেমন সাধারণ মানুষের মধ্যে তেমনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও। এটি অজ্ঞতা এবং মতলববাজরা অশনিসংকেত বলারও প্রয়াশ পেয়েছে। অর্থাৎ এক করোনা আতংক নানা দিকে থেকে আঁকড়ে ধরেছে দেশের প্রচলিত সমাজ ব্যবস্থাকে। আর এটিকেই কাজে লাগিয়ে ফায়দা হাসিল করছে একশ্রেণীর অসৎ ব্যবসায়ী। তারা মালামালের অহেতুক সংকট দেখিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে সাধারণ মানুষের অর্থ। না হলে ওই সময় বাংলাদেশে ৩৫/৪০ টাকার পেঁয়াজের মূল্য ৭০/৮০ টাকা হাওয়ার কোন কারণই থাকতে পারে না বলে আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।

সম্পাদনা : এমএম আমজাদ হোসাইন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *