বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

সম্পাদকীয় : পরিবেশ-পরিস্থিতি এবং সার্বিক পর্যালোচনায় করোনা ভাইরাস নিয়ে আতংকের কারণ নেই

করোনা ভাইরাস নিয়ে আর যেখানেই হোক বাংলাদেশে আতংকিত হওয়ার কিছু আছে বলে মনে করিনা। গতকাল দৈনিক আজকের বার্তায় প্রকাশিত সংবাদ তথ্যে এ পর্যন্ত যে ৫ হাজার ৮০ জনের মৃত্যুর কথা বলা হয়েছে তার ভেতর চীনেই মৃত্যুবরণ করেছে ৩ হাজার ৪৭৯ জন। বাকিরা মৃত্যুবরণ করেছে ইতালিতে ১ হাজার ১৬, ইরানে ৫১৪ এবং দঃ কোরিয়ায় ৭১ জন। বাংলাদেশে আক্রান্ত হিসেবে যে ৩ জনকে চিহ্নিত করা হয়েছিল তাদের কেউই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত নন বলে ইতোমধ্যেই ঘোষণা করা হয়েছে। সেক্ষেত্রে করোনা আক্রান্ত যে শতাধিক দেশের কথা বলা হয়েছে তার ভেতর বাংলাদেশের নাম উঠেনি। এ ব্যাপারে কয়েকটি সূত্র নিয়ে আমরা আলোচনা করতে চাই। যেমন গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে করোনা আক্রান্ত হযে যে ব্যক্তি প্রথম মৃত্যুবরণ করেন তার বয়স ছিল ৬১ বছর এবং তিনি অন্যান্য জটিল রোগেও ভুগছিলেন।

চীনারা প্রথমে এ ভাইরাসটিকে ২০০২/২০০৩ সালে সে দেশে সার্স ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কয়েক’শ লোক মারা গিয়েছিল তার সাথে তুলনা করে সতর্ক বার্তা প্রকাশকারীকে শাসিয়েছে। পরবর্তীতে এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় টনক নড়ে স্বাস্থ্য বিভাগের। জার্মান এক বিশেষজ্ঞের বিশ্লেষণে দেখা যায়, করোনা ভাইরাসের উৎসস্থল উহানের একটি বাজার, যেখানে সামুদ্রিক মাছ, বিড়াল, কুকুর প্রভৃতি বন্য প্রাণী বিক্রি হয়ে থাকে। উল্লিখিত সংবাদ তথ্যে বলা হয়েছে, উহানের একটি সামুদ্রিক খাবার ও বন্য প্রাণীর বাজার থেকে উৎপত্তি হওয়া ভাইরাসটি এখন ইউরোপ ও আমেরিকায় ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। সে তুলনায় বাংলাদেশ অনেকটাই নিরাপদ।

এখন প্রশ্ন হলো করোনা ভাইরাসের স্থায়িত্ব নিয়ে এক জার্মান বিজ্ঞানী যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন তাতে আমাদের আতংকিত হওয়ার কোন কারণ নেই। ওই বিজ্ঞানী বলেছেন, করোনা ২১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় ৫ দিন বাঁচতে পারে। তাপমাত্রা ২৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত হলে সেটির আয়ুষ্কাল কয়েক ঘণ্টা মাত্র। অপর এক বিশেষজ্ঞ এটা দেখিয়েছেন যে, চীনের উহান, ইতালি, দক্ষিণ কোরিয়া এবং তাইওয়ানের তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে থাকায় ওই সব দেশে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বেশি। অবশ্য ওই বিশেষজ্ঞের তথ্যে আমেরিকার আক্রান্ত এলাকার তাপমাত্রা বলা হয়নি। এক্ষেত্রে আমরা বাংলাদেশের তাপমাত্রা নিয়ে আলোচনা করতে পারি। আবহাওয়া বিভাগের তথ্যমতে চলতি মার্চ মাসের শুরুতে ৩১ ডিগ্রি সেলসিয়াস থাকলেও পরবর্তীতে সর্বনিম্ন ২৮ ডিগ্রিতে নেমে আসলেও এখন ক্রমবর্ধমান। বাংলাদেশের তাপমাত্রা এখন আর বাড়বে বই কমবেনা। সেক্ষেত্রে এদেশে করোনা ভাইরাস নিয়ে তেমন কোন আতংকের কারণ আছে বলেও মনে করিনা। দ্বিতীয়ত: বাংলাদেশে সামুদ্রিক মাছ বিক্রি হলেও চীনের মত সবধরনের জলজ প্রাণী নয়। সেখানকার জনগোষ্ঠীর খাবারে যেমন কুকুর, বিড়াল, সাপসহ বন্য প্রাণী রয়েছে তেমনি সামুদ্রিক নানা জাতের প্রাণীও ওরা খায়। এসব পরিবেশগত এবং ধর্মীয় ভাবেও বাংলাদেশে খাওয়ার অযোগ্য। সুতরাং সেসব থেকেও বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস ছড়ানো একেবারেই অসম্ভব। এখন শুধু একটিদিক নিয়ে ভাবতে হচ্ছে দেশের স্বাস্থ্য বিভাগকে আর সেটি হলো, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কোন ব্যক্তি দেশে আসলে তাদের মাধ্যমে এটি ছড়িয়ে পড়তে পারে কি না।

এক্ষেত্রে আশার কথা এই যে, চীন থেকে ফেরা যে সব লোককে আশকোনা হজ ক্যাম্পে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছিল তারা সকলেই করোনা ভাইরাস মুক্ত বলে ইতোমধ্যেই ছেড়ে দেয়া হয়েছে। সম্প্রতি সরকারী ভাবে যে তিন রোগীর কথা বলা হয়েছিল, গতকালের সর্বশেষ খবর অনুযায়ী তারা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত নয়। অর্থাৎ তাদের কারোর শরীরেই ওই ভাইরাসটির উপস্থিতি পাওয়া যায়নি। ভারতে যেসব বাংলাদেশী ১৪ দিনের পর্যবেক্ষণে ছিলেন তারাও করোনা মুক্ত বলে দেশে ফিরেছেন। সর্বশেষ ইতালি থেকে এমিরেটস বিমানে পাঠানোদের প্রথমে আশকোনা হজ ক্যাম্পে রেখে পর্যবেক্ষণের কথা থাকলেও গতকাল স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষায় তারা কেউই করোনা আক্রান্ত নন বলে ক্যাম্পে নয়, তারা যার যার বাড়িতেই ১৪দিন অবস্থান করবেন এবং স্থানীয় প্রশাসন সেটি তদারকি করবে।

এ সব আলোচনা-পর্যালোচনায় এটি অনেকটাই নিশ্চিত ভাবে বলা যায় যে, বাংলাদেশে এখনো করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সন্ধান মেলেনি আর এদেশের তাপমাত্রায় ওই ভাইরাসটি টিকতে পারবে না। সুতরাং আমাদের অভিমত হলো করোনা ভাইরাস নিয়ে আতংকের কোন কারণ নেই।

সম্পাদনা : এমএম আমজাদ হোসাইন

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :