বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

সম্পাদকীয় : বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন আজ

আজ ১৭ মার্চ। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন। ১৯২০ সালের এই দিনে তৎকালীন ফরিদপুর জেলার গোপালগঞ্জ মহকুমার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে ঐতিহ্যবাহী শেখ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন আমাদের স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সে সূত্রেই এবারের আনুষ্ঠানিকতা গোটা দেশের গ-িপেড়িয়ে সারা বিশ্বব্যাপী জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী পালিত হচ্ছে। তবে বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাস আতংক দেখা দেয়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের জন্মশত বার্ষিকী পালন অনুষ্ঠানে এসেছে ব্যাপক পরিবর্তন। বিশেষ করে সবক্ষেত্রেই গণজমায়েত বাতিল করে পালিত হবে এই দিনটি।

দিনটি পালনে বরিশালের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, সকাল সাড়ে ৬ টায় জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, সকাল ৯ টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ, মসজিদ, মন্দির, গীর্জা ও প্যাগোডাসহ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে দোয়া-মোনাজাত ও স্ব স্ব ধর্মমতে বিশেষ প্রার্থনা, দুঃস্থ ও এতিমদের মাঝে মিষ্টি ও খাবার বিতরণ, দলীয় কার্যালয় থেকে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ প্রচার, সড়কদ্বীপ ও সুউচ্চ ভবনে আলোকসজ্জা এবং সন্ধ্যা ৬ টার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন কমিটির আয়োজনে একযোগে সকল গণমাধ্যমে প্রচারিত অনুষ্ঠান দেখা, যা কোন গণজমায়েতের পরিবর্তে ঘরে বসেই দেখার ব্যবস্থা করা হয়েছে। রাত ৮ টায় সারাদেশের সাথে একযোগে আতশবাজির আয়োজন। এ সকল অনুষ্ঠানাদিতে সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের অংশগ্রহণের জন্যও জেলা এবং মহানগর আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে আহবান জানানো হয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালনে শুধুমাত্র আওয়ামীলীগেই নয় বরং স্বাধীনতার স্বপক্ষের সকল রাজনৈতিক দল, সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো স্ব স্ব কর্মসূচি পালন করছে। শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসকাব বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে আলোচনা সভার আয়োজন করেছে। আলোচনা শেষে দোয়া মোনাজাত ও কাব আয়োজিত অন্যান্য কর্মসূচি ঘোষণার কথা রয়েছে। এ প্রসঙ্গে বলতেই হচ্ছে অনন্য সাধারণ রাজনৈতিক প্রতিভা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি হয়ে ওঠার কথা। এটা সকলেরই জানা যে, পাকিস্তানি নব্য শাসক গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ন্যায্য অধিকারের কথা বলতে গিয়ে শেখ মুজিবুর রহমানকে বছরের পর বছর কারাগারে কাটাতে হয়েছে। তারপরেও তিনি আইউব শাহীর কাছে মাথা নত না করে যে ঐতিহাসিক ছয় দফা উত্থাপন ও প্রচার করেন প্রকারান্তরে তার ভেতরই আমাদের স্বাধীনতার মূলমন্ত্র নিহিত ছিল। এরপরে অনেক সময়, অনেক ঘটনা, তার বিরুদ্ধে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা, আইউবের বিদায়ে আর এক সামরিক শাসক ইয়াহিয়া খানের ক্ষমতায় আরোহণ, ৭০ এর সাধারণ নির্বাচন প্রভৃতি ঘটনা প্রবাহ বঙ্গবন্ধুর অসাধারণ রাজনৈতিক প্রতিভাকেই প্রকাশ করে।

সত্তরের সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের নিরঙ্কুশ সংখ্যা গরিষ্ঠতা অর্জনের পর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা হস্তান্তরে যে মুহূর্তে ইয়াহিয়া-ভুট্টোর তালবাহানা শুরু হয়, তখন কিন্তু মজলুম জননেতা মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর অলাইকুম-আচ্ছালাম বা ছাত্রলীগের উগ্রচেতনাধারীতে সরাসরি স্বাধীনতা ঘোষাণার দাবি উচ্চারিত হতে থাকে, তখনও কিন্তু রাজনৈতিক কবিখ্যাত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ছিলেন শান্ত, সুস্থির। গোটা দেশের মানুষ যখন ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা দেবেন বলে ভেবেই নিয়েছিলেন, তারাও দেখলেন কি ভাবে তিনি ২৩ বছরের ইতিহাস তুলে ধরলেন, কি ভাবে শাসক গোষ্ঠীকে শাসালেন এবং তারই ফাঁকে ফাঁকে গোটা বাঙালী জাতিকে মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নেয়ার কথা, জাতিকে ঐক্যবদ্ধ থাকার কথা এবং অর্থ পাচার না হতে পারে এমন সব কথাও বললেন; বললেন “আমি যদি হুকুম দেবার নাও পারি তোমরা প্রস্তুত থাক, প্রতিরোধ গড়ে তোল”। সবশেষে, “এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম”। এখানে যে কথাটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ তাহলো, সেদিন সরাসরি স্বাধীনতার ঘোষণা দেয়া হলে, পাকি বাহিনীর তাৎক্ষণিক আক্রমণে যেমন গোটা দেশ ম্যাসাকার হয়ে যেত, তেমনি বঙ্গবন্ধুকেও বলা হতো বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা।

তিনি সেদিকটাই সুকৌশলে পরিহার করলেন আলোচনার দরজা খোলা রেখে। এমন একজন নেতা যেমন যুগে যুগে আসেন না, তেমনি আসেন না শতাব্দী বা সহস্রাব্দেও। সেই মহান নেতার জন্মশতবার্ষিকী অনুষ্ঠান আজ। আমরা গোটা আনুষ্ঠানিকতার সফলতা কামনা করছি।

শেয়ার করুন :

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :

আমাদের সকল আপডেট পেতে মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন প্লে-ষ্টোর থেকে।