বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

সম্পাদকীয় : বঙ্গোপসাগর জলদুস্য মুক্ত : নানাবিধ দুঃসংবাদে মধ্যে এটা একটা সু-সংবাদই বটে

বর্তমানে দেশে করোনা আতঙ্ক, সে সূত্রে স্থল বন্দর ও বিমান চলাচল বন্ধ, করোনায় ইতোমধ্যেই দু’জনের মৃত্যু, এর উপর বান্দরবানে গতকাল এক সড়ক দুর্ঘটনায় অন্তত: ১৫ জনের প্রাণহানি এমনি সব নানাবিধ অশুভ সংবাদের মধ্যেও গতকাল প্রকশিত হয়েছে একটি আনন্দ বা সুসংবাদ। “বঙ্গোপসাগর এখন নিরাপদ জোন, জলদস্যু আতঙ্ক নেই জেলেদের”। আমাদের কলাপাড়া প্রতিনিধির পাঠানো ওই সংবাদটিতে বলা হয়েছে, ২০১৬ সাল থেকে তিন বছর এলিট ফোর্স র‌্যাবের ধারাবাহিক সফল অভিযানে কলাপাড়া উপকূলের হাজার হাজার জেলে, ট্রলার মালিক ও আড়ৎ মালিকরা এখন জলদুস্য মুক্ত বঙ্গোপসাগর পেয়েছেন। কারণ র‌্যাবের সফল অভিযানের সুফল হিসেবেই এক বছরে ঘটেনি কোন জলদুস্যতা।

ওই সংবাদ তথ্যমতে, জেলেরা এখন মনের সুখে নিশ্চিন্তে দিনরাত সাগরে অবস্থান করে মাছ শিকার করছেন। পূর্বে যেখানে জলদুস্যদের হানায় জেলেরা হারাতেন মাছ, জ্বালানী এবং ট্রলার পর্যন্ত, গুনতে হত অপহৃত জেলেদের জন্য মুক্তিপণের লাখ লাখ টাকা। সেখানে এখন আতঙ্কের বদলে স্বস্তির বাতাস বইছে। গভীর সমুদ্রে তারা শিকার করছেন ইলিশসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্টরা আমাদের প্রতিনিধিকে এটাও বলেছেন, জলদস্যু তো দূরের ব্যাপার, গত এক বছরে কোন জাল টানাটানির ঘটনাও ঘটেনি। এমন সব তথ্যের ধারক বাহক নিশ্চিন্তে মাছ শিকারে নিয়োজিত জেলে, উদ্বেলিত মৎস্যসমিতির নেতৃবৃন্দ, আনন্দিত ট্রলার মালিক এবং উৎফুল্ল আড়তদাররা। তারা প্রত্যেকেই আমাদের প্রতিনিধির সাথে এসব সুসংবাদ দিয়ে ধন্যবাদ জানিয়েছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী এবং এলিট ফোর্স খ্যাত র‌্যাবকে। এ দিকে র‌্যাব-৮ এর দেয়া তথ্যমতে ২০১৬ সাল থেকে র‌্যাবের অব্যাহত অভিযানে বঙ্গোপসাগরে জলদস্যুদের ২৭টি বাহিনী সম্পূর্ণভাবে নির্মূল হয়েছে। ওই সকল অভিযানে উদ্ধার করা হয়েছে শত শত আগ্নেয় এবং দেশীয় অস্ত্র ও হাজার হাজার রাউন্ড গোলাবারুদ। তবে এ সফলতা এমনিতেই আসেনি, র‌্যাবের অভিযান কৌশলের মধ্যেও যাদের আত্মসমর্পণের সুযোগ দেয়া হয়েছিল। সেইসব আত্মসমর্পণকারী জলদস্যুদের এখনো র‌্যাবের নজরদারীতে রাখা হয়েছে।

অর্থাৎ যে জলসদ্যুরা তাদের অঙ্গীকার রক্ষা করে স্বাভাবিক জীবন যাপনে রয়েছে কিনা তা মনিটরিং করছে র‌্যাব তাদের নিজস্ব পদ্ধতিতে। এ বিষয়ে একটি কথা বলা দরকার যে, বিগত ২/৩ বছরে বরিশালের র‌্যাব-৮ এর সদর দপ্তরে একাধিকবার জলদস্যুদের আত্মসমর্পণের ঘটনা ঘটেছে যার প্রত্যেকটিতেই স্বয়ং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উপস্থিত ছিলেন। অপর দিকে যারা সরকারের কথায় জলদস্যুতা ছেড়ে দিয়ে স্বাভাবিক জীবন যাপনে আগ্রহ দেখিয়ে অস্ত্র-গোলা-বারুদসহ আত্মসমর্পণ করেছে তাদের জন্য সহায়তাও দেয়া হয়েছে। এমনি একটি প্রেক্ষাপটে জলদুস্যমুক্ত বপোঙ্গপসাগরের জেলে, ট্রলার মালিক, আড়তদার, মৎস্যজীবী সমিতি, বরফকল মালিক, প্রভৃতি জনগোষ্ঠীর এই আনন্দের দিনেই অবশ্যই সরকার প্রধান এবং তার সহায়ক মন্ত্রণালয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী এবং সেই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নকারী র‌্যাবকে তো ধন্যবাদ দেয়ারই কথা। দেশের এলিট ফোর্স র‌্যাব এবং চৌকস পুলিশ বাহিনীর যৌথ অভিযানে যে ভাবে জঙ্গি তৎপরতা নিশ্চিহ্ন না হলেও নিবারিত করা সম্ভব হয়েছে, তেমনি বঙ্গোপসাগর হয়েছে জলদস্যু মুক্ত মৎস্য শিকারের অভয়াশ্রম।

আমরা আশাতো করিই, বিশ্বাসও করি এই র‌্যাব পুলিশ সদস্যদের মাধ্যমেই বাংলাদেশ অচিরেই মাদক মুক্ত দেশ হবে। এর সাথে বাংলাদেশকে দুর্নীতিমুক্ত করা গেলে এ দেশ হবে বিশ্বের বিস্ময়। তবে এটাও আমরা বিশ্বাস করি যে, বঙ্গোপসাগর যে ভাবে জলদস্যু মুক্ত করা গেছে, জঙ্গিতৎপরতা নিবারণ সম্ভব হয়েছে এবং মাদকের রশি টেনে ধরা হয়েছে, তেমনি দুর্নীতির মূলোৎপাটন সম্ভব না হলেও দুর্নীতির মাত্রা কমিয়ে আনা সম্ভব হবে। কেননা সরকার প্রধান যে ভাবে নিজ দল থেকেই দুর্নীতিবাজদের ব্যাপারে জিরো টলারেন্স মনোভাব দেখাচ্ছেন সেটার সাথে তার নীতিনির্ধারক র‌্যাব এবং পুলিশ বাহিনী একাত্ম হলে দুর্নীতির রশি টেনে ধরা সম্ভব বলে আমরা মনে করি। আমরা বঙ্গোপসাগরের সুসংবাদের পর এমন একটি সুসংবাদের প্রত্যাশায়ই থাকলাম।

সম্পাদনা : এম এম আমজাদ হোসাইন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *