বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

সম্পাদকীয় : ভ্রাম্যমাণ আদালতে শিশুদের সাজা প্রদান অবৈধ প্রসঙ্গে

ক্ষমতা থাকলেই যে তা সবক্ষেত্রে ব্যবহার করা যায় না সেটিই চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিতে হলো সর্বোচ্চ আদালত হাইকোর্টকে। শিশুদের সাজা দেয়া যে সংবিধানবহির্ভূত সে বিষয়ক দু’টি সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। এর প্রথমটির শিরোনাম, “ভ্রাম্যমাণ আদালতে শিশুদের সাজা প্রদান অবৈধ”। এটি হাইকোর্টের একটি রায়ের সিদ্ধান্ত। আর দ্বিতীয় সংবাদটি রায়ের অপেক্ষায়, সেটির শিরোনাম, “সরোয়ার আলম সহ তিনজনের ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে রিট”।

প্রথমে উল্লেখিত সংবাদ তথ্যমতে, গত বছরের ৩১ অক্টোবর ভ্রাম্যমাণ আদালতের দেয়া দণ্ডে যশোর ও টঙ্গীর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে অন্তরীণ ২১২ শিশুকে মুক্তিরও নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে ভ্রাম্যমাণ আদালতের দেয়া দণ্ড এবং শিশুদের আটকাদেশ কেন আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না সেটিও জানতে চেয়েছেন আদালত। উল্লেখ্য, ঘটনাটি নিয়ে একটি জাতীয় দৈনিক ওই সময় যে সংবাদটি প্রকাশ করে তার শিরোনাম করা হয়, “আইনে মানা, তবুও ১২১ শিশুর দণ্ড”।

এটি আমাদের তুলে আনার কারণ হলো, ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী সঙ্গত: কারণেই একজন মেধাবী ব্যক্তি এবং একজন বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট। শিশুদের দণ্ড দেয়া আইনে মানা, এ বিষয়টি না জানার কথা নয় তার। একজন সাংবাদিক যে আইনটি জানেন সেটি একজন আইনবিদের অজানা তা হতে পারে না। তারপরেও কেন শিশুদের আটকাদেশ দেয়া হলো সেটি নিয়ে দু’টি প্রশ্ন থাকতেই পারে। এর প্রথমটি হলো ক্ষমতার অপব্যবহার অথবা অজ্ঞাত কোন কারণ। এটি আমাদের বলার কারণ হলো, বাংলাদেশ দ-বিধির ৮৩ ধারা অনুযায়ী ১২ বছর বয়সের নিচের শিশুদের সাজা দেয়া যায় না। কিন্তু ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী ম্যাজিস্ট্রেট দণ্ডবিধির ওই ধারা সম্পর্কে জ্ঞাত নন সেটি মেনে নেয়ার কোন সুযোগ আছে বলে মনে করিনা।

অবশেষে গত ১১ মার্চ হাইকোর্টের দুই বিজ্ঞ বিচারপতি সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ ঘোষণা করেছেন, ভ্রাম্যমাণ আদালতে শিশুদের সাজা দেয়া অবৈধ এবং তা বাতিল। ফলে উল্লিখিত ১২১ শিশুর সাজাও বাতিল হয়ে যায়। আমরা মনে করি, এটিও হাইকোর্টের একটি যথোপযুক্ত এবং সময়োচিত রায়। অপরদিকে আমরা দ্বিতীয় যে সংবাদটির বিষয়ে বলার প্রয়াশ পাচ্ছি সেটিও ওই ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা বিষয়ক। ওই সংবাদে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম, আক্তারুজ্জামান এবং নিজাম উদ্দিনের ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার ক্ষমতা বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে একটি সম্পূরক রিট আবেদন ‘চিলড্রেনস চ্যারিটি বাংলাদেশ’ ফাউন্ডেশনের পক্ষে করা হয়েছে। এ আবেদনটিও আদেশের জন্য হাইকোর্টের একই বেঞ্চে অপেক্ষমাণ।

উল্লিখিত তিন ম্যাজিস্ট্রেটের বিরুদ্ধে অভিযোগ হলো তারা একই সময়ে শিশুমেলা ও ফার্মগেটে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন যা ক্ষমতার অপব্যবহার, একই সাক্ষীরা বার বার বিভিন্ন স্থানে উপস্থিত হয়েছে, এক ধারার অপরাধ দেখিয়ে ভিন্ন ধারায় চার্জগঠন করা হয়েছে এবং চলন্ত ভ্যান থেকে কলা চুরির অপরাধে সাজা দেয়া হয়েছে যা মোবাইল কোর্ট দিতে পারেন না। ওই রিট আবেদনে এটাও বলা হয়েছে, সাজানো সাক্ষী সাজানো মামলা আর ক্ষমতার চূড়ান্ত অপব্যবহার করেছেন ওই অভিযুক্তরা। এছাড়াও তাদের বিরুদ্ধে জোর করে শিশুদের কাছ থেকে স্বীকারোক্তি আদায়েরও অভিযোগ আনা হয়েছে। আবেদনে এটাও বলা হয়েছে, উল্লিখিত তিনজনের কর্মকাণ্ড সংবিধানের ৩৩ ও ৩৫ অনুচ্ছেদের লঙ্ঘন। আবেদনকারীর বক্তব্য বা অভিযোগ নিষ্পত্তি করবেন হাইকোর্ট এবং সেটি যথাযথ হবে বলেই আমাদের বিশ্বাস।

কিন্তু প্রশ্ন হলো ম্যাজিস্ট্রেসির বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ আসবে কেন? আমরা শুরুতেই বলেছি, একজন ম্যাজিস্ট্রেট সঙ্গত: কারণেই মেধাবী এবং আইনগত ভাবেও বিজ্ঞ। আর সে কারণেই তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার দায়িত্ব বর্তায়। তাদের দণ্ডবিধি সম্পর্কেও অজানা থাকার কথা নয়। তার পরেও শিশুদের নিয়ে তাদের এমন মাথা ব্যথা অর্থাৎ ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সাজা দেয়া কেন? কেন দেশের সর্বোচ্চ আদালতকেই বলতে হবে, “ভ্রাম্যমাণ আদালতে শিশুদের সাজা দেয়া অবৈধ”? আমরাতো মনে করি এটি প্রতিটি সচেতন নাগরিকও হাইকোর্টের ওই রায়কে বিনাবাক্যে সঠিকই বলবেন। তাহলে যে বা যারা শিশুদের সাজা দিয়েছেন তাদের বিবেচনায় কেন সেটি আসেনি? ক্ষমতা পেলেই যে তা যখন-তখন, যেখানে সেখানে ব্যবহার করতে নেই সেটাকি তাদের মেধায় নেই?

আমরাতো মনে করি দ্বিতীয় সংবাদটির রায়ও প্রথম সংবাদটির মত শিশুদের পক্ষেই যাবে। এ রায় থেকেও আমাদের সচেতন হওয়ার সুযোগ আছে।

সম্পাদনা : এমএম আমজাদ হোসাইন

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :