বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

সম্পাদকীয় : মাদক কারবারি গাঁজা রফিক জানতনা যে সব পুলিশই ঘুষ খায় না

অপরাধের সীমা অতিক্রম হলে অপরাধী যে নিজের জালেই নিজে ফেঁসে যায় তারই প্রমাণ মনে হচ্ছে আলেকান্দা রিফিউজি কলোনীর চিহ্নিত মাদক কারবারি রফিকের অবশেষে আটক হওয়া। এ বিষয়ক একটি সংবাদ গতকাল স্থানীয় পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। সংবাদটির শিরোনাম করা হয়েছে, “বরিশালে গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী চক্র আটক”। একই সংবাদ একটি সহযোগী পত্রিকায় এসেছে, “মাদক বিক্রয়ে সহযোগিতা চেয়ে দুই কেজি গাঁজাসহ আটক হোতা-সহযোগী” শিরোনামে। তাহলে বিষয়টি একটু খতিয়ে দেখার প্রয়োজন আছে বলে মনে করি।

মূলত: খালেদাবাদ রিফিউজি কলোনীর চিহ্নিত মাদক বিক্রেতা রফিকুল ইসলাম প্যাদা এবং তার সহযোগী শ্যালক আরমান শেখ প্রকৃত অর্থেই সেখানকার এক আতংক। আর এই আতংকের শরিকদার রফিকের শ্বশুর গোলাম শেখ সহ গোটা পরিবার। সম্ভবত সেই ভরসাতেই মঙ্গলবার দুপুরে ডিবি পুলিশের এসআই মহিউদ্দিন আহমেদের বাসায় যায় রফিক এবং তার মাদক ব্যবসায় সহযোগিতার প্রস্তাব দেয়, অর্থাৎ ঘুষ দেয়ার সুবাদে তার সহায়তা চায়। এ বিষয়ে ডিবি’র উল্লিখিত এসআই জানান, মূলত; প্রশাসনের মাদক বিরোধী অভিযানের ভয়েই রফিক তাকে ম্যানেজ করতে যায়।

এ প্রসঙ্গে আমাদের দু’টি দিক আলোচনার প্রয়োজন বলে মনে করি। প্রথমত: সব পুলিশই যে ঘুষ খায় না অথবা অপরাধীর সাথে আপোষ করেনা, এটা কসাই থেকে বড়লোক বনে যাওয়া রফিকের মাথায় আসেনি। দ্বিতীয়ত: এই রফিকেরা বিগতদিনে ঘুষখোর পুলিশকে ম্যানেজ করেই গোটা পরিবার মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে বিশাল বিশাল বাড়ি করার অর্থ কামাতে পেরেছে। সেকারণেই আমরা শুরুতে বলছিলাম অপরাধের মাত্রা অতিক্রম করলে অনেক সময় অপরাধীর মতিভ্রম ঘটে অর্থ-বিত্তের আত্মঅহমিকার কারণে।  কেননা অবৈধ অর্থ বিত্ত সময়ের ব্যবধানে যে ধ্বংস ডেকে আনে তার নজির অসংখ্য। আমরা সাম্প্রতিক কালের ক্যাসিনো ব্যবসার সাথে জড়িতদের কথাই বলিনা কেন, অথবা নরসিংদির আওয়ামীলীগ নেত্রী (সাবেক) পর্ণব্যবসায়ী পাপিয়া, ওদের পাপের সীমা অতিক্রম করায়ইতো গাছের শীর্ষ থেকে গোড়ায় নামতে বাধ্য হয়েছে। হয়তো এমন সব অপরাধী আরো রয়েছে। কিন্তু সব কিছুরই শেষওতো আছে।  বাংলাদেশের সেনাশাসিত জরুরী সরকারের সময়ে যে বনের রাজা গনি বস্তা-বস্তা টাকাসহ আটক হয়ে এখনো জেলের ঘানি টানছে, সেই গনিতো শ্বশুর বাড়ি বেড়াতে এলেও নিজস্ব বাবুর্চি নিয়ে আসত বলে শোনা যায়। আমরা বলতে চাইছি অন্যায় অপরাধের মাত্রা যখন বেসামাল হয়ে যায় তখন সেই অপরাধী আত্মঅহংকারী হয়ে ওঠে এবং ধরাকে সরাজ্ঞান করে। গাঁজাসহ আটককৃত চিহ্নিত মাদক কারবারি রফিকও সেই অহংকারেই হয়তো পূর্ব অভিজ্ঞতার কৌশলে খোদ ডিবি পুলিশ মহিউদ্দিন আহমেদের আসায় যায় ঘুষের প্রস্তাব নিয়ে।

ওই রফিক হয়তো বুঝতেই চায়নি যে, অপোষহীন পুলিশ সদস্যও এদেশে আছেন। একটা কথা আমরা বরাবরই বলে আসছি যে, প্রত্যেকটি পেশাতেই সৎ এবং দক্ষ লোকজন যেমন আছেন তেমনি অসৎ-অদক্ষও রয়েছেন। হতে পারে কোন কোন পেশায় অসৎদের আনাগোনা বেশি। তার পরেও এটাই সত্য যে, সব মানুষই সবকিছুর সাথে আপোষ করেননা। মনে করি ডিবি পুলিশের এসআই মহিউদ্দিনও তেমনই একজন অপরাধের সাথে আপোষহীন এক পুলিশ কর্মকর্তা। আর হবেইবা না কেন, বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার যে ভাবে মাদকের ব্যাপারে জিরোটলারেন্স ভূমিকা নিয়েছেন তাতে মনে করি উল্লিখিত ডিবি এসআই মহিউদ্দিনের মত আরো অনেকেই তাকে সহায়তা করছেন।

উল্লিখিত সংবাদে বলা হয়েছে, এক সময় মাংসের দোকানের কসাই থেকে বর্তমানে গাঁজা রফিক ও তার শ্যালক কোটিপতি বলে গেছে। রিফিউজি কলোনী সংলগ্ন কাজীপাড়া এবং রাজবাড়িতে দু’টি অট্টালিকা বানিয়েছে ঐ রফিক। সেই সুবাদে তার ব্যবসা নির্বিঘœ করতে একাধিক বাহিনী বানিয়েছে রফিক গং আর তার মাধ্যমেই গড়ে তুলেছে অঢেল সম্পত্তি ও অর্থের যোগান। রফিককে আটককারী ডিবি এসআই মহিউদ্দিনেরও ধারণা, সম্ভাব্য অভিযান থেকে বাঁচার জন্যই রফিক তাকে ম্যানেজের প্রস্তাব নিয়ে বাসায় যায়। সর্বশেষে তাদের অভিযানে আটককৃত রফিক ও তার শ্বশুরের বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ গাঁজা উদ্ধার হয় বলেও সংবাদে প্রকাশ। গোটা বিষয়টি সম্পর্কে আমরা সংশ্লিষ্ট এসআইসহ অভিযানকারী পুলিশের সফলতা কামনা করছি।

সম্পাদনা : এমএম আমজাদ হোসাইন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *