বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

সম্পাদকীয় : পাঠ্যবই সংরক্ষণ কমিটিকে না জানিয়ে কোন সাহসে উদ্বৃত্ত বই বিক্রি করলেন মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার?

ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আবুল বাসার তালুকদার সরকারী পাঠ্যবই নিয়মবহির্ভূত ভাবে বিক্রি করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ক একটি সংবাদ বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। সংবাদের বিষয় বস্তু হলো, সরকারী পাঠ্যবই যা বছর বছর উদ্বৃত্ত থাকে তা একটি নির্দিষ্ট সময়ে বিক্রি করতে হবে এবং সে জন্য একটি কমিটিও করে দেয়া আছে। ওই কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সদস্য সচিব উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এবং স্থানীয় তিনটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তিন প্রধান। আমাদের জানামতে ওই তিনজনের একজন বালক বিদ্যালয়ের, একজন বালিকা বিদ্যালয়ের এবং অপর জন মাদ্রাসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান। সে যেটাই হোক, নিয়ম হলো পুরনো বই বিক্রি করে দিয়ে স্থান ফাঁকা করা হবে নতুন বই রাখার জন্য।


অন্যান্য স্থানের মত রাজাপুরেও বই রাখার স্থান বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। সে হিসেবে রাজাপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে ও বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে মাধ্যমিক স্তরের বই এবং ফাজিল মাদ্রাসা কক্ষে মাদ্রাসা স্তরের বইগুলো সংরক্ষিত ছিল। কিন্তু কাউকে কিছু না জানিয়েই সদস্য সচিব এককভাবে বইগুলো দিনাজপুর নেয়ার জন্য বিক্রি করে দিয়েছেন বলে সংবাদে প্রকাশ। সংবাদ তথ্য মতে বই ভর্তি একটি ট্রাক সোমবার দুপুরে পাইলট স্কুলের সামনে থেকেই আটক করেন খোদ উপজেলা নির্বাহী অফিসার। সুতরাং সঙ্গত কারণেই বলতে হবে বই সংরক্ষণ ও বিক্রি কমিটির সভাপতিই যখন অবহিত নন তখন কমিটির অপর তিন সদস্যও হয়তো জানতেন না। কিন্তু যে স্কুল কক্ষ থেকেই বইগুলো ট্রাকে তোলা হয়েছে সেই স্কুলের প্রধান শিক্ষক বিষয়টি জানতেন না, সেটা বলার কোন সুযোগ আছে বলে মনে করি না। ওই বই বিক্রির ব্যাপারে অভিযুক্ত উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের বক্তব্য হলো, নতুন পাঠ্য বই রাখার জায়গা না হওয়ায় পুরনো বইগুলো বিক্রি করা হয়েছে। কিন্তু তার এই বক্তব্য কোন ভাবেই ধোপে টেকেনা। কারণ প্রতি বছর নতুন পাঠ্য বই গুদামে ওঠে ডিসেম্বর মাসে এবং ১ জানুয়ারি পাঠ্যবই উৎসব। অপর দিকে এই মার্চে এসে উদ্বৃত্ত বই ছাড়া সব বই বিতরণ হয়ে গেছে। সুতরাং এখন নতুন বই রাখার জন্য জায়গার প্রয়োজন হলো কেন? তার পরেও যদি তার বক্তব্য সঠিক ধরেও নেই, তাহলেও প্রশ্ন উঠে আসে এতগুলো বই বিক্রির বিষয়টি সংরক্ষণ কমিটির সভাপতি হিসেবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জানবেন না কেন?

এ বিষয়ে নির্বাহী অফিসারের বক্তব্য হলো, ২০১৯ সাল পর্যন্ত পুরাতন বইগুলো বিক্রির অনুমতি থাকলেও ২০১৯ সালের উদ্বৃত্ত বই বিক্রির কোন সুযোগ নাই। কিন্তু অভিযুক্ত আবুল বাসার তালুকদার গোপনে নতুন বইও বিক্রি করে দিয়েছেন। সংবাদ তথ্যমতে, অভিযুক্ত উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার গোপনে একক সিদ্ধান্তে বইগুলো বিক্রি করায় থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন প্রধান শিক্ষক মো. জাহিদুল ইসলাম। তার বক্তব্য হলো আবুল বাসার তালুকদার কাউকে কিছু না জানিয়ে ২০ টন পাঠ্য বই উত্তরবঙ্গের সৈয়দপুরের এক ব্যবসায়ীর কাছে বিক্রি করেছেন।

তবে ট্রাক চালক বলেছেন, বইগুলো সৈয়দপুরে নেয়ার জন্য ট্রাকটি ভাড়া করেছেন রাজাপুরেরই এক ব্যবসায়ী। এটিও রহস্যজনক একারণে যে, বই বিক্রির কোন টেন্ডার না হলেও সৈয়দপুরের ব্যবসায়ী রাজাপুরে এলেন কি ভাবে? এ প্রশ্নে এক অভিজ্ঞ প্রতিষ্ঠান প্রধানের অভিমত হলো, হয়তো সেখানকার কোন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের সাথে যোগসাজশে অপকর্মটি ঘটানো হয়ে থাকতে পারে। এমনও হতে পারে, রাজাপুরের যে ব্যবসায়ী ট্রাকভাড়া করেছেন তিনি হয়তো সৈয়দপুর থেকে একই ভাবে বই আমদানী করবেন। আমরা মনে করি এমন হোক অথবা অন্য কোন ব্যাপার থাকুক, অভিযুক্তের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়রি হয়েছে এবং দুদককেও সংবাদ দেয়া হয়েছে বলে সংবাদে প্রকাশ। সে ক্ষেত্রে পুলিশ প্রশাসন এবং দুদক এর ভিন্ন ভিন্ন তদন্তে আসল রহস্য বেরিয়ে আসবে। আমরা এটিকে দুঃসাহসী দুর্নীতি বলে মনে করি। সুতরাং এ ব্যাপারে কোন ছাড় দেয়ারও সুযোগ আছে বলে মনে করি না। আমরা আশা করবো, উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিষয়টি সম্পর্কে অনড় অবস্থান গ্রহণ করবেন।

সম্পাদনা : এমএম আমজাদ হোসাইন

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :