বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

সরকারি কলেজের জায়গা দখল করে আ.লীগের অফিস

অনলাইন ডেস্ক :: ময়মনসিংহের ত্রিশালে সরকারি নজরুল কলেজের জায়গা দখল করে আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের কার্যালয় দিয়েছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের কয়েকজন নেতা। এ নিয়ে দলের ভেতরে-বাইরে চলছে নানা সমালোচনা। এটিকে কেন্দ্র করে যেমন দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে।

কলেজ সূত্র জানায়, গত বছর ত্রিশাল উপজেলা শহরে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কঘেঁষে বাসস্ট্যান্ড এলাকার নজরুল কলেজকে সরকারি ঘোষণা করা হয়। কলেজের প্রধান গেটের উত্তর-দক্ষিণ পাশে ৭০টির মতো দোকান রয়েছে।

উত্তর পাশের দোকানগুলো ভাড়া দিলেও দক্ষিণ পাশের নিচতলায় সাতটি দোকান ও দোতলায় জোরপূর্বক আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের অফিস নির্মাণ করা হয়। দুই অফিসের ভাড়া দিচ্ছে না কেউ।

প্রথমে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি টানিয়ে নিয়মবহির্ভূতভাবে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ আশরাফুলের নেতৃত্বে দোকান ও দোতলা ভবন দখল করে নেয়া হয়। এ বিষয়ে স্থানীয় প্রশাসনকে জানিয়েও কোনো কাজ হয়নি।

কলেজের ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সদস্য আব্দুল আউয়াল বলেন, কোনো ধরনের রেজুলেশন ছাড়াই যে যার মতো করে দোকান তৈরি করেছেন। নিচতলায় দোকান তৈরি শেষ হলে আওয়ামী লীগ নেতারা দোতলার পুরোটাই পার্টি অফিস বানিয়ে নিয়েছেন।

তিনি বলেন, বিভিন্ন জায়গায় কলেজের আরও অনেক সম্পত্তি রয়েছে। যেগুলো অধ্যক্ষের গাফিলতির কারণে বেদখল হয়ে গেছে। অধ্যক্ষও বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা পাওয়ায় কলেজের জমির কোনো খোঁজখবর নেননি।

ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সদস্য ও দোকান দখলকারী আনোয়ার হোসেন আকন্দ বলেন, দোকান বরাদ্দ বাবদ বিভিন্ন সময়ে কলেজ ফান্ডে সাত লাখ টাকা দিয়েছি। টাকা জমা দেয়ার পরও দোকান করে না দেয়ায় নিজেই দোকান নির্মাণ করে নিয়েছি।

স্থানীয় স্বপন সরকার বলেন, কোনোরকম নিয়মের তোয়াক্কা না করে কলেজের সামনে দোকান ও পার্টি অফিস হয়েছে। সাতটি দোকানের মধ্যে ছয়টির মালিকরা কলেজ ফান্ডে কিছু টাকা জমা রাখলেও সবুজ ছায়া হোটেল কোনো টাকা না দিয়ে অবৈধভাবে চলছে। আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের অফিস তো দোতলায়। এ নিয়ে কিছু বললেও সমস্যা।

এ ব্যাপারে ত্রিশাল সরকারি নজরুল কলেজের অধ্যক্ষ মজিবুর রহমান বলেন, কলেজের উন্নয়নে সার্বক্ষণিক কাজ করে যাচ্ছি। তাই কিছু মানুষ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছেন।

উপজেলা জাতীয় পার্টির সহ-সভাপতি সুরুজ আলী মন্ডল বলেন, সরকার ক্ষমতায় তাই আওয়ামী লীগ যা খুশি তাই করছে। কিন্তু সরকারি কলেজের জায়গায় আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের অফিস কোনোভাবে কাম্য নয়। আওয়ামী লীগের এসব কাজ শিক্ষা ব্যবস্থাকে কলুষিত করছে।

ত্রিশাল উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক মোহাম্মদ আশরাফুল ইসলাম বলেন, কলেজের জায়গায় ৩৫ লাখ টাকা খরচ করে পার্টি অফিস করেছি। বিষয়টি সবাই জানে। এখানে দলীয় কর্মকাণ্ড হয়। এতে দোষের কিছু নেই।

ত্রিশাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা (ইউএনও) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, কলেজ সরকারি হওয়ার পর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সভাপতির দায়িত্বে থাকেন। সম্প্রতি যোগদান করায় কলেজ সম্পর্কে তেমন খোঁজখবর নেয়া হয়নি। তবে কেউ সরকারি কলেজের জায়গা দখল করে ভোগ করতে পারবে না। উচ্ছেদ আইনে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :