বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

সাংবাদিক শাকিব বিপ্লবকে পানিতে চুবিয়ে হত্যাচেষ্টা : গণমাধ্যমে হুমকি স্বরূপ

আহমেদ জালাল : বরিশালের ক্ষুরধার লেখনী শক্তিধর এক কলমযোদ্ধা সাংবাদিক শাকিব বিপ্লব। তিনি প্রত্যয়ী ও বলিষ্ঠ লেখনীর মাধ্যমে মানুষকে সমাজ সচেতনতায় অনুপ্রাণিত করে চলছেন। যার কলম অত্যাচারী শাসক শোষক নামক ভণ্ডদের অস্ত্রের চেয়ে বেশি শক্তিমান। তাঁর লিখনীতে ফুটে ওঠে শোষিত নীপিড়িত মানুষের চাওয়া-পাওয়া। তিনি ক্ষুরধার লিখনীর মাধ্যমে অন্যায়, জুলুম ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে আসছেন ; যা অশুভ শক্তির অন্যায় ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে বজ্রের ন্যায় কঠিন, ‘হিরার’ চেয়ে ধারালো। সিনিয়র সাংবাদিক শাকিব বিপ্লবের ওপর সন্ত্রাসী হামলা কেন? কারা এই সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত থেকে অশুভ শক্তির দাপট প্রদর্শনে জনমনে ভীতিকর ও নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে শান্ত বরিশালকে অশান্ত করার পায়ঁতারায় মত্ত থেকে নানা কিসিমের ফাঁয়দা লোটার ধান্ধায় মরিয়া? হামলাকারী টোকাইদের কারা লেলিয়ে দিয়েছে? গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ বিশেষে কে বা কারা তাকে ওই দিন পূর্বপরিকল্পিত সন্ত্রাসী হামলা ও ব্লাকমেইলের ঘটনাস্থলে নিয়েছে। সাংবাদিক শাকিব বিপ্লবকে পুকুরে চুবিয়ে হত্যাচেষ্টায় কে বা কারা নেপথ্যে থেকে টোকাইদের দিয়ে এক ভয়ানক অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করে চলছে? সভ্য সমাজের বিপরীতে এক অসভ্য সমাজের উন্মুক্ততার মত্ততে যুক্ত থাকাটা কতোটা সমাজ, গণমাধ্যম, রাষ্ট্র সর্বোপরি জনগাষ্ঠির জন্য হুমকিস্বরূপ?

প্রসঙ্গত : গত ১১ অক্টোবর রাতে সন্ত্রাস প্রকৃতির কয়েক জন পুর্বপরিকল্পিতভাবে সাংবাদিক শাকিব বিপ্লবকে বরিশাল নগরীর ঐতিহ্যবাহী বিবির পুকুর পাড়ে কৌশলে ডেকে এনে নিয়ে আসে। কথা বলার একপর্যায়ে বিবির পুকুরের পানিতে ফেলে দেয় সাংবাদিক শাকিব বিপ্লবকে। এরপর সংঘবদ্ধ চক্রের সদস্যরা সাংবাদিক শাকিব বিপ্লবকে পানিতে চুবিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায়। এমনকি হত্যা করতে ব্যর্থ হওয়ায় চক্রটি ব্লাকমেইলের কৌশল অবলম্বন করে। অর্থাৎ শাকিব যখন পানি থেকে তীরে ওঠার চেষ্টা করে তখন ভিডিও ধারণ করে চক্রের সদস্যরা। এরপরই ওই রাতেই ফেসবুকে ভিডিও ছেড়ে দেয়। পাশাপাশি একই সময়ে ফেসবুকসহ একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালে ওই ভিডিও আপলোড করে। হত্যা চেষ্টার মিশনে ব্যর্থ হয়ে ব্লাকমেইলের উদ্দেশ্যে ভিডিও ফেসবুকে ছেড়ে দেয়ার মতো চরম ঘৃনিত অপরাধ করে সংঘবদ্ধ অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডসহ কিলিং মিশনে মাঠ দাপিয়ে বেড়ানো চক্রটি।

ভিডিও আপলোড করে লেখা হয়, নগরীর পুলাশপুর এলাকার ছালেহা(ছদ্মনাম) বিবিরপুর পাড়ে ঘুরতে আসেন। তাকে দেখে শাকিব বিপ্লব নামের এক যুবক ওই মেয়েকে উত্ত্যক্ত করতে থাকেন। ‍এরপর ভূক্তভোগী তার পরিবারের সদস্যদের মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে আসেন। স্বজনরা যুবককে জিজ্ঞাসা করলে ওই যুবক ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। পরে মেয়েটির পরিবার ওই যুবককে গণধোলাই দিয়ে বিবির পুকুরে ফেলে দেন। প্রশ্ন হচ্ছে-কে সেই নারী? সেই নারী কিংবা তার স্বজনদের কোন বক্তব্য আছে কিনা? সেই নারী বরিশালের কোন থানায় শাকিবের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছেন কিনা? কিন্তু অনুসন্ধানে এসব প্রশ্নের কোন উত্তরের খোঁজ মিলেনি।

সর্বশেষ চক্রের সদস্যসহ তাদের আশ্রয় প্রশয়দাতাদের জিম্মিদশায় রাখা হয় শাকিব বিপ্লবকে। এরপর বর্বর ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার মিশনের লক্ষে বুধবার (১৪ অক্টোবর) রাতে পানিতে চুবিয়ে হত্যা চেষ্টাকারীদের সঙ্গে শাকিবকে বরিশাল থেকে প্রকাশিত একটি পত্রিকা অফিসে বৈঠকে বসানো হয়। পরবর্তীতে ভুল বোঝাবুঝির অবসান ঘটানোর কথা বলে বিভিন্ন মাধ্যমে হত্যাচেষ্টাকারীদের সঙ্গে সাংবাদিক শাকিব বিপ্লবের একটি ফটোশেসনের ছবি ছেড়ে দেয়া হয়।

সবমিলিয়ে বরিশাল মিডিয়ায় চরম এই অসভ্য কর্মকাণ্ডে যারা জড়িত তাদের বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হোক। আর এহেন জঘন্যতম বর্বর বিষয়টির অনুসন্ধান করে সাংবাদিক শাকিব বিপ্লবকে হত্যাচেষ্টাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দায়িত্ব রাষ্ট্রের সংশ্লিষ্ট সকল দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠানের। একইসঙ্গে প্রথিতযশা সাংবাদিক শাকিব বিপ্লবকে জিম্মিদশা থেকে মুক্ত করে নিরাপত্তা দেয়ার দায়িত্বও রাষ্ট্রের। লাগাম টেনে ধরা হোক অসভ্যদের। চিরতরে নিপাত যাক বরিশাল মিডিয়ার পরিবেশ বিনষ্টকারীরা। এহেন অসভ্যরা যত বড় শক্তিধরই হোক না কেন বাংলার মাটিতেই এদের পতনের ঘণ্টা বেজে উঠবেই।

লেখক : নির্বাহী সম্পাদক ও বার্তা প্রধান, রণাঙ্গণের মুখপত্র ‌’দৈনিক বিপ্লবী বাংলাদেশ।’

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :