বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

সাতলায় ত্যাগী আ.লীগ নেতাদের নিয়ে অপপ্রচার, এলাকায় চরম উত্তেজনা

উজিরপুর প্রতিনিধি :: বরিশালের উজিরপুরের সাতলায় ত্যাগী আওয়ামীলীগ নেতাদের নিয়ে অপ-প্রচার চালাচ্ছে একদল স্বার্থান্বেসী মহল, নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়- সাতলা ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচনকে কেন্দ্র করে স্থানীয় কতিপয় আওয়ামীলীগ বিদ্বেষী, মাদকসেবী ও ধর্ষন মামলার আসামীরা একত্রিত হয়ে বরিশাল বিএম কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক নেতা, উপজেলা আওয়ামীলীগ ও যুবলীগের সাবেক সদস্য মোঃ শাহিন হাওলাদারকে নিয়ে বিভিন্ন অপ-প্রচার চালাচ্ছে। শাহিন হাওলাদার গত ২০ অক্টোবর সাতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী খায়রুল বাশার লিটনের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির যুগ্ম আহবায়ক ছিলেন। শুধু তাই নয় তার ২ নং ওয়ার্ড ভোট কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকে সর্বাধিক ভোট প্রদান করে সুনাম অর্জন করেছেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে একটি মহল উদ্দেশ্য প্রনোদিত ভাবে তার সুনাম ক্ষুন্ন করার জন্য বিভিন্ন অনলাইন ও স্যোসাল মিডিয়ায় অপ-প্রচার চালিয়ে আসছে।

অপরদিকে মোঃ নান্টু হাওলাদারকে অভিযোগকারী হিসেবে প্রকাশ করলেও তিনি সৃষ্টিকর্তার কসম দিয়ে বলেন আমি এ ধরনের অভিযোগ কারো কাছে কখনও দেইনি। শাহীন হাওলাদার আওয়ামীলীগ নেতাদের কোন ছবি অপসারন করেনি এবং নির্র্বাচন নিয়ে তার সাথে কোন দ্বন্দ্ব হয়নি। শাহিন হাওলাদারের পিতা সাতলা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি, উপজেলা আ’লীগের সাবেক সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত মোঃ ফজলুল হক হাওলাদার ছিলেন একজন নিবেদিত আওয়ামীলীগ কর্মী। তার সুযোগ্য ছেলে উচ্চ শিক্ষিত মোঃ শাহিন হাওলাদার জানান, তার রক্তে মাংসে মিশে আছে আওয়ামীলীগ।

আওয়ামীলীগের জন্য সে জীবন দিতে প্রস্তুত। দক্ষিণ বঙ্গের রাজনৈতিক অভিভাবক আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ ও বরিশাল-২ আসনের সংসদ সদস্য মোঃ শাহে আলম এর নির্দেশিত পথে পরিচালিত হচ্ছেন তিনি। বর্তমান এমপি মাদক ও সন্ত্রাসীর বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষনা করেছেন। সে অনুযায়ী ২৩ অক্টোবর পশ্চিম সাতলা গ্রামের মাদকাশক্ত ইমাম হাওলাদার ও ধর্ষণ মাদক সহ বহু মামলার আসামী রাসেল হাওলাদারকে তাদের খারাপ পথ থেকে ভালো হওয়ার জন্য অনুরোধ করলে তারাই ক্ষিপ্ত হয়ে বিভিন্ন অপ-প্রচার শুরু করেছে।

এমনকি ২৪ অক্টোবর ইমাম হাওলাদার গাঁজা নিয়ে পুলিশের কাছে হাতে নাতে ধরা পড়ে জেল হাজতে যান। জামিনে এলাকায় ফিরে এসে তারা বিভিন্ন অপ-প্রচার শুরু করেছে। তিনি আরো জানান সোসাল মিডিয়ায় অপ-প্রচারের বিরুদ্ধে তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :