বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

সেদিন যা ঘটেছিল পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীর রেস্ট হাউজে!

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বরিশালে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে জড়িয়েছে ছাত্রলীগের দুটি গ্রুপ। এতে উভয়গ্রুপের অন্তত ১০ নেতাকর্মী আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। শহরের ভিআইপি গেট পানি উন্নয়ন বোর্ডের রেস্ট হাউজের সামনে শনিবার বিকেলের এই সংঘর্ষে আহত আনোয়ার হোসেন নামের এক কর্মীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘাতে জড়ানো মুয়ীদুর রহমান বাকি এবং ইয়াদের অনুসারীরা সকলে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী অনুগত ছাত্রলীগ নেতাকর্মী।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিকেলে প্রতিমন্ত্রী বিমানবন্দরের উদ্দেশে রওনা দেওয়ার কিছুক্ষণ পরে ভিআইপি গেট পানি উন্নয়ন বোর্ডের রেস্ট হাউজের সামনে আকস্মিক সংঘাতে জড়িয়ে পড়ে বরিশাল কলেজ ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমুল হোসেন ইয়াদ এবং বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ কর্মী মুয়ীদুর রহমান বাকির অনুসারীরা। একপর্যায়ে উভয়গ্রুপের নেতাকর্মীরা সেখানে এক পক্ষ অপর পক্ষকে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া দেয়। এসময় দুগ্রুপের সংঘাতে উভয়পক্ষের অন্তত ১০ নেতাকর্মী আহত হন। তাদের মধ্যে ছাত্রলীগ নেতা ইয়াদের অনুসারী আনোয়ার হোসেন (২৭) গুরুতর আহত হলে উদ্ধার করে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানানো হলেও প্রকৃত পক্ষে তাকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়নি। তবে এই সংঘাতের ঘটনায় ছাত্রলীগ কর্মী বাকি ও ছাত্রলীগ নেতা ইয়াদ একে অপরের ওপর হামলার অভিযোগ এনেছেন।

ইয়াদের অভিযোগ, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে তার ওপর মুয়ীদুর রহমান বাকিসহ বেশ কয়েকজন হামলা করেছে। এসময় তাকে রক্ষায় আনোয়ার এ গিয়ে গেলে আনোয়ার হোসেনকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করে। পরে উদ্ধার করে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে মুয়ীদুর রহমান বাকি বলছেন, আমি প্রতিমন্ত্রীর রেস্ট হাউজে গেলে আমাকে দেখেই অকথ্য ভাষায় গালাগাল শুরু করে ইয়াদ। তাৎক্ষনিক তার ফোন কলে কিছু বহিরাগত লোকজন ছুটে আসে। তখনি আমার ওপর ইয়াদসহ তার অনুসারীরা চড়াও হলে তখন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা আমার পক্ষ নেন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ইয়াদসহ তার লোকজন হামলা করেছে। এসময় ইয়াদের লোকজন লাঠি দিয়ে পিটুনি দিলে তার অনুসারি পরিচয়দানকারী আনোয়ার হোসেন নামের একজনের হাতে লাগে। পরে ছাত্রলীগ নেতা প্রদিপ দাস ও অপু ভাই এসে আমাদের রক্ষা করে। এদিকে আইনি সুবিধা নিতে উল্টো ইয়াদ তাদের ওপর হামলা অভিযোগ আনছেন।

তবে প্রতিমন্ত্রী সমর্থিত ছাত্রলীগের দুগ্রুপের সংঘাতের বিষয়ে কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশে কিছুই জানেনা বা তাদের কেউ কিছুই বলেওনি। ওসি নুরুল ইসলাম বলেন, এই ঘটনায় অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

ছাত্রলীগ নেতা ইয়াদ ও ছাত্রলীগ কর্মী মুয়ীদুর রহমান বাকি উভয়ে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীর এপিএস শফিকুল ইসলাম পিন্টুর অনুসারি বলে জানা গেছে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :