বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

ফাঁসের গুজব, প্রশ্নে জটিলতা

এসএসসি পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর নানা তেলেসমাতি কান্ড ঘটতে শুরু করেছে। প্রথমত বরাবরের মতোই প্রশ্ন ফাঁসের গুজব রটানো হয়েছে। উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবেই যে গুজব রটানোর মতো অপকর্ম করা হয়ে থাকে, তা বলাই বাহুল্য। তবে র‌্যাব অত্যন্ত সক্রিয় রয়েছে। প্রশ্ন ফাঁসে অপচেষ্টাকারী এবং গুজব রটনাকারীÑ উভয় চক্রের ১২জন র‌্যাবের জালে ইতোমধ্যে আটকা পড়েছে। দ্বিতীয়ত: প্রশ্নপত্রে ভুল এবং নোট গাইডের অবিকল প্রশ্নের আছর পড়েছে প্রশ্নপত্রের ওপর। বিষয়টি দুঃখজনক, একইসঙ্গে উদ্বেগেরও বটে। উল্লেখ্য, গত বছর এসএসসি পরীক্ষায় একইভাবে ভুল প্রশ্ন বিতরণের পর জাতীয় সংসদে প্রশ্ন তুলেছিলেন একাধিক সংসদ সদস্য। উত্তরের ভুল প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা দেয়া এসএসসি পরীক্ষার্থীদের খাতা আলাদাভাবে মূল্যায়ন করা হবে বলে জাতীয় সংসদকে জানিয়েছিলেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। এবার এসএসসি পরীক্ষার প্রথম দিনেই বিভ্রান্তিতে পড়তে হয়েছে পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের। একাধিক কেন্দ্রে ভুল প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা শুরু করার ঘটনা ঘটেছে। প্রথমে ২০১৮ সালের প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা শুরু করা হলেও কিছুক্ষণ পর পরীক্ষার্থীদের ২০২০ সালের প্রশ্নপত্র দেয়া হয়। আবার কিছু কেন্দ্রে সময় বাড়িয়ে দেয়া হলেও অনেক কেন্দ্রে সময় বাড়ানো হয়নি। কোথাও আবার পুরনো প্রশ্নেই পরীক্ষা শেষ করতে হয়েছে পরীক্ষার্থীদের। বিষয়টি রীতিমতো উদ্বেগের। ঠাকুরগাঁও সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ২০৩ ও ২০৪ নম্বর কক্ষে সরবরাহ করা হয় ২০১৮ সালের প্রশ্নপত্র। প্রায় ১৫ মিনিট পর প্রশ্ন পরিবর্তন করে দেন শিক্ষকরা। বরিশালের একটি কেন্দ্রে ২০২০ সালের বদলে তাদের ২০১৮ সালের প্রশ্নপত্র দেয়া হয়। এতে অর্ধশতাধিক পরীক্ষার্থী ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে অভিভাবকরা জানিয়েছেন। গোবিন্দগঞ্জের একটি কেন্দ্রে বাংলা প্রথম পত্র পরীক্ষায় ২০১৮ সালের সিলেবাসের একজন পরীক্ষার্থী থাকলেও ১৩৩ জন পরীক্ষার্থীকেই পুরনো প্রশ্ন সরবরাহ করা হয়। প্রায় ৩০ মিনিট পরীক্ষা চলার পর ভুল প্রশ্নপত্র সরবরাহের বিষয়টি নজরে আসে। এরপর নতুন করে ২০২০ সালের প্রশ্নপত্র সরবরাহ করা হয়। ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের একটি কেন্দ্রেও ভুল প্রশ্নে পরীক্ষা নেয়ার ঘটনা ঘটেছে। লালমনিরহাটের বড়বাড়ি, দিনাজপুরের কাহারোল, নীলফামারী সদর, যশোরের চৌগাছা, টাঙ্গাইল সদরসহ বিভিন্ন কেন্দ্রে ভুল প্রশ্নে এসএসসি পরীক্ষা নেয়ার ঘটনা ঘটেছে। সার্বিকভাবে পরীক্ষা গ্রহণকারীদের অবহেলা ও সমন্বয়হীনতার কারণে এ ধরনের ভুলের সৃষ্টি। পরীক্ষা গ্রহণকারী শিক্ষকদের হাতে থাকা প্রশ্নপত্রের কোন সেটে পরীক্ষা হবে তা নির্দেশ অনুসারে বিতরণ করার কথা। বর্তমানে আমাদের বসবাস ডিজিটাল যুগে, এখন আগের যে কোন সময়ের তুলনায় দ্রæত ও নির্ভুলভাবে পরস্পরের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব। অথচ এ সময়ে এসে এ ধরনের ভুল দেখতে হচ্ছে। পাশাপাশি বলতে হয়, বছরে বছরে সিলাবাসে পরিবর্তনও শিক্ষার্থীদের জন্য ইতিবাচক ফল বয়ে আনে না। আর এটাও নিশ্চিত করতে হবে, যেন ভিন্ন ভিন্ন সিলেবাসের পরীক্ষার্থীদের আলাদা আলাদা কক্ষে পরীক্ষা নেয়া হয়; তা না হলে এ ধরনের ভুল হওয়ার আশঙ্কা থেকেই যাবে। শুভবোধসম্পন্ন মানুষের প্রত্যাশা, ইতোমধ্যে যে ভুল হয়েছে তার যেন আর পুনরাবৃত্তি না ঘটে। পরীক্ষার্থীরা যেন এই ভুলের কারণে কোনভাবেই ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। এসএসসির মতো জীবনের প্রথম পাবলিক পরীক্ষা যেন নির্বিঘেœ সম্পন্ন হয় সে জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা প্রত্যাশিত।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :